আত্রাইয়ে গৃহবধূর লাশ ফেলে স্বামী ও পরিবারের পলায়ন

নওগাঁ প্রতিনিধি (আজকের নারায়নগঞ্জ): নওগাঁর আত্রাইয়ে গৃহবধূকে হত্যার  পর  লাশটি হাসপাতালে ফেলে পালিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে  ঘাতক স্বামী ও তার পরিবার। এ ঘটনায় নিহত সাদিয়া বিবির(১৯)  লাশ উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ময়না তদন্তের জন্য নওগাঁ হাসপাতাল মর্গে পেরণ করেছে  নওগাঁর আত্রাই থানা পুলিশ  ।

নিহত সাদিয়া রাণীনগর উপজেলার হরিশপুর গ্রামের সাইফুল ইসলামের মেয়ে।

মেয়ের পরিবার সূত্রে জানা যায়, বুধবার (১৭ অক্টোবর) সকাল ১০টায় নিহত সাদিয়ার স্বামী রায়হানের ছোট ভাই ফোন করে মেয়ের বাবা সাইফুল ইসলামকে জানায় আপনার মেয়ে বিষপান করেছে। আপনি এলাকার মেম্বার ও মাতব্বরদেরকে নিয়ে দ্রুত আত্রাই হাসপাতালে আসেন। এ সময় মেয়ের বাবা আত্রাই হাসপাতালে আসার পরে দেখতে পান তার মেয়েকে মৃত অবস্থায় রেখে জামাই ও তার পরিবার পালিয়ে গেছে। পরে আত্রাই থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য লাশ নওগাঁ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

নিহতের বাবা সাইফুল ইসলাম আরও জানান, বিগত ১ বছর পূর্বে আত্রাই উপজেলার দিঘা গ্রামের আব্দুল মজিদ কবিরাজের ছেলে রায়হান (২৫) এর সাথে আমার মেয়ের বিবাহ হয়েছে। বিবাহের পর থেকেই তারা মেয়েকে মারপিট ও নির্যাতন করে। এ ঘটনায় কয়েক দফা গ্রাম্য বৈঠকও হয়েছে। আমার ধারণা তারা আমার মেয়েকে হত্যা করে মুখে বিষ ঢেলে দিয়েছে। এঘটনায় নিহতের স্বামী রায়হান ও তার পরিবারের লোকজন পলাতক থাকায় তাদের কোন বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

আত্রাই থানার ওসি মোবারক হোসেন জানান, নিহত সাদিয়া বিবির লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নওগাঁ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে এবং এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। এটি হত্যা না আত্মহত্যা তদন্ত রিপোট আসার পর তা বোঝা যাবে।