বন্দরে তৃণমূল নেতাকর্মীরা নৌকার দাবিতে এক হয়েছে- সুফিয়ান

বন্দর(আজকের নারায়নগঞ্জ):  জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম আবু সুফিয়ান বলেছেন,সবজায়গাতেই তৃণমূল নেতাকর্মীদের একটিই দাবি নৌকার প্রার্থী। বিগত দিনে এ আসনের নেতাকর্মীরা অন্য দলের এমপির সমর্থকদের মাধ্যমে নানা জায়গায় নির্যাতিত হয়েছে।

তিনি হতাশকন্ঠে বলেন, দলের সাংগঠনিক কাঠামো নড়বড়ে হওয়ায় তারা সবখানে নিপীড়িত ও বঞ্চিত হয়েছেন। এই সুযোগে উপজেলা চেয়ারম্যান আজ বিএনপির, ভাইস চেয়ারম্যান জামাতের আর মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানও বিএনপির। কোথাও যাওয়ার সুযোগ নেই আওয়ামীলীগ কর্মীদের। তাই তৃণমূল নেতাকর্মীরা আজ নৌকার প্রার্থীর দাবিতে এক হয়েছে। এ দাবির পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার (১১ অক্টোবর) বিকেলে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) ২৫নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ লক্ষণখোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তৃণমূল আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের নিয়ে সরকারের উন্নয়নের প্রচারসভা ও গণসংযোগ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। সভায় সভাপতিত্ব করেন ২৫নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সভাপতি শাহ আলম।

আবু সুফিয়ান আরো বলেন, নারায়ণগঞ্জ-৫ (সদর-বন্দর) আসনে আমরা নৌকা চাই। নৌকার প্রার্থী দীর্ঘদিন যাবত না থাকার কারণে এখানে একটি বিশৃঙ্খলা তৈরী হয়েছে। দলের সাংগঠনিক কাঠামো ভেঙে যাচ্ছে। দলকে সুসংগঠিত রাখতে হলে এবং আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের পুনর্জাগরণ ঘটাতে হলে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনে নৌকা চাই।

কদম রসুল সেতু প্রকল্প একনেক সভায় পাশ হওয়ায় তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, এ সেতু প্রকল্প একনেকে পাশ হওয়ায় বন্দরবাসীর দীর্ঘদিনের স্বপ্ন বাস্তবায়ন হতে যাচ্ছে। সভানেত্রী শহর-বন্দরবাসীর প্রাণের দাবিগুলো সম্পর্কে অবগত। মানুষের কষ্ট লাঘবের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন।

সুফিয়ান দাবী করে বলেন, এ সরকারের সময়কালে যত উন্নয়ন হয়েছে অতীতের কোন সরকার এতো উন্নয়ন করতে পারেননি। মানুষের কাছে কাছে এসব উন্নয়ন সেবার বার্তা পৌছে দিতে হবে। জনপ্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনার কাছেই মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন নিশ্চিন্ত। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হলে পূণরায় শেখ হাসিনাকে আবারো প্রধানমন্ত্রী বানাতে হবে। এ জন্য কাজ করতে তৃণমূল নেতাকর্মীদের নিয়ে আমি প্রস্তুত আছি।

প্রচার সভায় জেলা আওয়ামীলীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক নূর হোসেন, শহর আওয়ামীলীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক শহীদুল্লাহ মাষ্টার, থানা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন আনু, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা মীর আসলাম, মো.আজম, যুবলীগ নেতা আব্দুল মোতালিব, কবির হোসেন টিটু, শরীফ হোসেন, আলমগীর হোসেন, মো.টিটু, সেলিম মিয়া, মুন্না আল আমিন, হাসেম প্রেসিডেন্ট, হাবিবুর রহমান, খোরশেদ আলম এমলাক, আমির হোসেন আমির, ইউসুফ মিয়া, আবুল ফজল আজম, আক্কাস, ফয়েজ, ছাত্রলীগ নেতা রাব্বী, রাকিব, ফরিদ, রাসেলসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।