নীলফামারীর প্রেমিক যুগলকে আটকাতে ব্যর্থ মান্দা পুলিশ!

 

মাহবুবুজ্জামান সেতু, নওগাঁ প্রতিনিধি:  শরতের শেষ বিকেলের গধুলীলগ্নে পশ্চিমাকাশে হেলে পড়া সূর্যকে মনের খাঁচায় বন্ধী করতে মান্দার সতীহাট বাসষ্ট্যান্ডে নওগাঁ- রাজশাহী মহাসড়কে একাকী পায়ে হেঁটে পথচলার সময় তোলা ছবি। ছবি তোলায় মূখ্য বিষয় ছিলো না।

মূলত: উদ্দেশ্য ছিলো সরকার ফিলিং ষ্টেশনের পাশে না কি ডিবি পুলিশের অভিযান চলছে রেটিনা ফার্মেসী থেকে খবরটি শোনার পর কৌতুহল জাগলো যে, দেখিতো; অাসলে বিষয়টা কি!

ক্র্যাচে ভর করে গুটিগুটি পায়ে গিয়ে বসলাম পেট্রোল পাম্প সংলগ্ন একটি দোকানের সামনে।

ঘটনার সত্যতা জানার চেষ্টা করলাম। কিন্তু শুরুতে কেউ বলতে পারলো না।

দোকানের বারান্দায় চুপচাপ কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতেই প্রতক্ষদর্শী একজন স্থানীয় লোক এসে পাশে দাঁড়িয়ে দোকানে বসে থাকা অন্যদেরকে বলতে লাগলো যে, অাজ সোমবার সকাল থেকেই নাকি অত্র একাকায় অভিযান চালিয়েছে ডিবি পুলিশের একটি টিম। অবাক হওয়ার কিছু নেই। অাসলেই তাই!

যেহেতু,অভিযান পরিচালনাকারীরা ডিবি পরিচয় দিয়েছিলো বলে জানা গেছে।

প্রসংঙ্গত অাগুন্তক লোকটি জানায়, সূদুর নীলফামারী জেলা থেকে প্রেমিক যুগোল অজানার উদ্দেশ্যে পালিয়ে এসে সতীহাট এলাকায় অবস্থান করছিলো এমন খবর পেয়ে পলাতক প্রেমিকার অভিভাবকরা একটা হাইস গাড়ি রিজার্ভ করে তাদের মেয়েকে উদ্ধারের চেষ্টা চালায়।

কিন্তু প্রেমিকের ফোন ট্যাগ করেও কোনো লাভ হয় নি। কেনোনা, ততোক্ষণে প্রেমিক যুগোল তাদের অাটকের অভিযান চলছে এমন অাভাষ পেয়ে ওই এলাকা ছেড়ে নাটোরের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিলে কোনো উপায় না পেয়ে পালিয়ে যাওয়া প্রেমিকার অভিভাবকেরা সন্ধ্যায় ফিরে যেতে বাধ্য হয়।

স্থানীয়রা জানিয়েছে, মেয়েটি না কি অনেক ধনাঢ্য পরিবারের অার ছেলেটি  গরীব পরিবারের সন্তান।

তবে ছেলেটি কি যেনো চাকুরী করে বলে জানা গেছে। তারপরেও গরীবের সন্তান বলে কথা।

অার মেয়েটির নাকি বিয়ের কথা বার্তা ফাইনাল হয়ে গেছিলো।

মেয়েটির বিয়ে ঠিক হয়ে যাওয়ার কারনে ছেলে অর্থাৎ বরপক্ষকে বিয়ের যৌতুক (ডিমান্ড)স্বরুপ বেশকিছু টাকাও না কি দিয়েছে মেয়ে অর্থাৎ কনের পরিবার।

এমতাবস্থায় মেয়েটির বিয়ে ঠিক হওয়ার কথা শুনে এবং তাদের প্রেমের সম্পর্ক মেনে না নেওয়ায় পূর্বের প্রেমিকের হাত ধরে পালিয়ে যায় তাদের মেয়েটি।

এমন ঘটনায় মান্দার সতীহাট এলাকায় উৎসুক জনতার মাঝে দিনভর চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।