না‘গঞ্জ-৫ আসনে নৌকার গনসংযোগে আরজু ভূঁইয়ার ৫৩ তম উঠান বৈঠক

বন্দর(আজকের নারায়নগঞ্জ): নারায়নগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৫ (সদর ও বন্দর) আসনে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী আরজু রহমান ভূঁইয়া বলেছেন, নারায়নগঞ্জ-৫ আসনের  জনগণ দীর্ঘ দিন নৌকায় ভোট দিতে পারছেনা। তবে সেক্ষেত্রে যোগ্য ও ত্যাগী, যারা দীর্ঘদিন দলের প্রতি অকুন্ঠ ভালবাসা পদর্শণ করেছেন অবশ্যই সে ধরণের ব্যক্তিকে মনোনয়ন দিতে হবে। নেত্রীর নির্দেশনা মোতাবেক নেতা-কর্মী ও গণমানুষের ডাকে এ বিভিন্ন জায়গায় আমি এপর্যন্ত ৫৩টি উঠান বৈঠক করেছি। নৌকার ও শেখ হাসিনার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি।

তিনি দাবী করে বলেন, বন্দরের আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের  শক্তিশালী ঘাটি হলেও  নেতা-কর্মীরা আজ অবহেলিত, লাঞ্ছিত, নিগৃহিত, নিষ্পেষিত এবং বঞ্চিত। তাই এ আসনের সবাই আজ লাঙ্গল নয় নৌকার দাবীতে স্বোচ্চার।

বৃহস্পতিবার (৪ অক্টোবর) বিকেলে বন্দর ইউনিয়নের ঝাউতলা কলাবাগ এলাকায় আরজু ভূইয়ার নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত ৫৩নং উঠন বৈঠকে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা আশ্রাফ আলী সভাপতিত্ব করেন।

আরজু ভূইয়া আরো বলেন, আমাদের পরিবারে ইতিহাস জেনে দেখুন আমাদের পরিবারের সদস্যরা সুদীর্ঘ কাল থেকেই আওয়ামী লীগের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। আমাকে যোগ্য মনে করলে আমার পক্ষে সর্বত্র আওয়াজ তুলুন। সকলের ইতিবাচক সাড়া পেলে নেত্রী ইনশাল্লাহ আমাকে মনোনয়ন দিবেন এবং নৌকাকে বিজয়ী করে অত্র আসনটি আমি নেত্রীকে উপহার দিতে চাই।

উন্নয়নই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মূল লক্ষ্য উল্লেখ করে আরজু ভূইয়া বলেন, উন্নয়নের স্বার্থে শেখ হাসিনার সরকার বার বার দরকার। সরকারের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে বিএনপি। বিভিন্ন দলত্যাগী ও যারা দেশের বিরুদ্ধে সর্বদা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকে তাদেরকে নিয়ে আবারও জোট গঠন করছে।

তিনি জনগনকে সতর্ক  করে দিয়ে বলেন,  যারা মানুষ পুড়িয়ে মেরেছে এবং দেশে অস্থিতিশীল অবস্থার তৈরী করেছে তাদের জনগণ ভোট দেবেনা। শেখ হাসিনা যে ধরণের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড করেছেন যা পৃথিবীর বুকে ইতিহাস সৃষ্টি করেছে। এ উন্নয়নের বিষয়গুলোর প্রচারণা ঘরে ঘরে চালিয়ে জনগণকে আবারো নৌকায় ভোট দানে উদ্বুদ্ধ করতে হবে।

উঠান বৈঠকে জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এডভোকেট ইসহাক মিয়া, মদনপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শুক্কুর আলী, সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন, সদস্য জলিল মিয়া, ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুসলিম প্রধান, বন্দর থানা কৃষক লীগের সাবেক সভাপতি আলী আকবর, বন্দর কলাবাগ পঞ্চায়েত কমিটির সাধারণ সম্পাদক আঃ বাতেন, ধামগড় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি হাজী নাসির উদ্দিন, প্রচার সম্পাদক আক্তার হোসেন, নাসিক ২৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা আবুল ফজল মোঃ আজম, ২৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা শাহপরান বাপ্পী, মুছাপুর ইউনিয়ন ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি শামসুল হক মাস্টার, বন্দর থানা যুবলীগ নেতা ইকবাল হোসেন ভূঁইয়া, বন্দর ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি আলী হোসেন, মদনপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি শাকিল ভূঁইয়া, নাসিক ২১নং ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী মায়ানুর আহম্মেদ মায়া, সাধারণ সম্পাদিকা মুন্নী দেওয়ান, বন্দর থানা যুব মহিলা লীগ নেত্রী মাফিয়া আক্তার তানিয়া, ২১নং ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগের সদস্য মাহমুদা আক্তার পান্না, শেফালী আক্তার ও পারুল আক্তার, বন্দর থানা তাঁতী লীগ সভাপতি আব্দুল হক, সহ-সভাপতি গহন আলী ও আজগড় আলী, ২৭নং ওয়ার্ড শ্রমিক লীগ সভাপতি এবাদুল্লাহ মিয়া, নারায়ণগঞ্জ মহানগর তরুণ লীগের সহ-সভাপতি ইমরান খাঁন, দপ্তর সম্পাদক সেলিম, বন্দর ইউনিয়ন বাস্তহারা লীগ সভাপতি আঃ খালেক, সেক্রেটারী শফি, সহ-সভাপতি জাহাঙ্গির, বাস্তহারা লীগ নেতা রহমত, বিপ্লব মোল্লা, স্থাণীয় মোস্তাফা দেওয়ান, মমিন, নূর মোহাম্মদ, জাহিদ হাসান, আক্তার হোসেন সহ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মী, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং স্থানীয় কয়েকশত জনসাধারণ উপস্থিত ছিলেন।