রং ও ক্যামিক্যালের মিশ্রনে তৈরী হচ্ছে জুস,ট্যাঙ,নকল চকলেট,লিচু!

 সিদ্ধিরগঞ্জ(আজকের নারায়নগঞ্জ):   শুধুমাত্র রং আর ক্যামিক্যালের মিশ্রণেই তৈরী হচ্ছে জুস। নাম দেয়া হচ্ছে ট্যাঙ ও ফ্রুটো। এ ধরনের বিষাক্ত পানিয় মানুষকে খাইয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। প্রতারনার ফাঁদে স্বাস্থ্যগত ঝুঁকিতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে জনগণ।

এমনই এক জুস তৈরীর কারখানার সন্থান মিলেছে র‌্যাব-১১ এর অভিযানে।   সিদ্ধিরগঞ্জের সানারপাড় এলাকায় আফসারা এগ্রো এন্ড ফুড প্রোডাক্টস লি. নামের ওই কারখানায় ভুয়া কাগজপত্র ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লোগো ব্যবহার করে ভেজাল পানীয়, ম্যাংগো জুস, চকলেট, শিশুদের চকলেট, লিচু ইত্যাদি তৈরী করে বাজারজাত করে আসছিলো।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার (১ অক্টেবর) দুপুরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সরোয়ার আলমের নেতৃত্বে কারখানাটিতে অভিযান চালিয়ে সিলগালা করে দিয়েছে র-১১ এর সদস্যরা। এসময় কারখানার মালিককে ৬ লাখ টাকা অর্থদন্ড দিয়ে ৭ জনকে আটক করেন র‌্যাবের ভ্রাম্যমান আদালত।

র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সরোয়ার আলম জানান, সানারপাড় এলাকায় এই প্রতিষ্ঠানটি দীর্ঘদিন যাবত ভুয়া কাগজপত্র এবং ঢাকাবিশ্ববিদ্যালয়েল লোগো ব্যবহার করেভেজাল জুস এবং শিশুদের চকলেট ইত্যাদি তৈরী করে বাজারজাত করে আসছে। আমরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আজ দুপুরে কারখানাটি অভিযান পরিচালনা করি।

এসময় কারখানার মালিক এমএ ওয়াজেদ এবং জলিলকে ৬ লাখ টাকা জরিমানাসহ দুই বছরের কারাদন্ড দেওয়া হয়। এছাড়া কারখানার সংশ্লিষ্ট ৫ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড দেওয়া হয়েছে