বন্দরবাসীর কাছে সাড়ে ৩ হাত জায়গা দাবী সেলিম ওসমানের

বন্দর(আজকের নারায়নগঞ্জ):  উন্নয়ন সম্পন্ন করেই নির্বাচনে অংশ নেওয়ার কথা জানিয়ে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান বলেছেন,আমার কোন চাওয়া-পাওয়া নেই। বন্দরবাসীর কাছে একটি দাবী মৃত্যু পর বন্দরের সাড়ে ৩ হাত জায়গা দিয়েন। আমার মরদেহ বন্দরের মাটিতে থাকতে দিলেই চলবে। আমি জনগনের গোলাম এমপি না। আমি শুধু নাসিম ওসমানের  প্রক্সি   হিসেবে কাজ করছি। আমি আপনাদের গোলামী করতে এসেছি। আমি মনে করি এখনো কোন কিছু করতে পারেনি। 

তিনি আরো বলেন, আমি বঙ্গবন্ধুর আর্দশের সৈনিক। মুক্তিযোদ্ধার হাত অনেক শক্ত।তিনি আরো বলেন, স্থানীয় সরকার প্রথা এরশাদ নিয়ে এসেছিল। যার কারনে আজকে উপজেলা, ইউপি চেয়ারম্যান। আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা। মুক্তিযোদ্ধার অস্ত্র বঙ্গবন্ধুর পায়ের নিচে জমা দিয়েছি। ৭০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ প্রক্রিয়াধীন। ভবিষ্যতে যদি আমি এমপি নাও থাকি তবুও উন্নয়ন কাজে আমাকে ডাকবেন আমি আসব। যেখানে উন্নয়ন হয়নি, সেখানে উন্নয়ন করতে না পারলে সেলিম ওসমান নির্বাচন করবে না।

শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪টায় কলাগাছিয়া ইউনিয়নের ঘাড়মোড়া এলাকায় নাসিম ওসমান স্মৃতি মটর সাইকেল ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন ও স্থানীয় গন্যমান্য লোকদের সাথে মত বিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সেলিম ওসমান এমপি এ কথা বলেন।

সেলিম ওসমান এমপি আরো বলেন,নাসিম ওসমানের স্বপ্নের উন্নয়ন এখনো অনেক বাকি। আমি হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদের কাছে কৃতঙ্গ। তিনি নমিনেশন দিয়েছিল বলে আমি আপনাদের গোলাম হতে পেরেছি। হাজার হাজার লোকের দোয়ায় আমি সেলিম ওসমান বেচে আছি। কিডনি, লিভারসহ নানা সমস্যা থাকলেও জনগনের দোয়ার কাছে ঔষধ মূল্যহীন।

এ সময় তিনি এলাকাবাসীর কাছে এলাকার সমস্যা এবং উন্নয়ন নিয়ে তাদের পরামর্শ ও মতামত জানতে চাইলে শারীরিক প্রতিবদ্ধী একজন এমপি সেলিম ওসমানের কাছে ঘাড়মোড়া এলাকায় সকল প্রতিবদ্ধীদের জন্য একটি প্রতিষ্ঠান করে দেওয়ার দাবী রাখেন। সাথে সাথে এমপি সেলিম ওসমান আগামী একমাসের মধ্যে প্রতিবন্ধীদের জন্য একটি প্রতিষ্ঠান করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি প্রদান করেন।

তিনি ঘাড়মোড়া এলাকায় একটি মসজিদ, একটি মাদ্রাসা, একটি স্কুল এবং একটি ক্লাবের উন্নয়নের জন্য ব্যক্তিগত তহবিল থেকে ১ কোটি টাকার অনুদান প্রদান করেছেন তিনি। এলাকার অন্যান্য উন্নয়নের জন্য তাঁর কাছে লিখিত প্রস্তাবনা প্রদান করতে এলাকাবাসীর প্রতি আহবান রেখেছেন এমপি সেলিম ওসমান। এর আগে ২০১৬ সালে ব্যক্তিগত তহবিল থেকে তিনি উক্ত উন্নয়ন কর্মকান্ড গুলো সম্পন্ন করার জন্য ১ কোটি টাকার অনুদান প্রদানের ঘোষণা দিয়ে ছিলেন। কিন্তু সংশ্লিষ্টদের পক্ষ থেকে লিখিত প্রস্তাবনা না পাওয়ার কারনে বিষয়টি বিলম্বিত হয়েছে। গত বুধবার লিখিত প্রস্তাবনা পাওয়ার পর পরই তিনি উন্নয়নের জন্য অনুদানের টাকা হস্তান্তর করেন।
কলাগাছিয়া ইউপি চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন প্রধানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক আবুল জাহের, মহানগর সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জুয়েল হোসেন, নাসিক কাউন্সিলর ও মহানগর সেচ্ছাসেবকলীগের সাধারন সম্পাদক সাইফুদ্দিন আহম্মেদ দুলাল প্রধান, বন্দর ইউপি চেয়ারম্যান এহসান উদ্দিন আহম্মেদ,ধামগড় ইউপি চেয়ারম্যান মাসুম মিয়া, মদনপুর ইউপি চেয়ারম্যান এম এ সালাম, কলাগাছিয়া ইউপি জাতীয় পার্টির সভাপতি বাচ্চু মিয়া, মাহবুবুর রহমান কমল, রাজু আহম্মেদ সুজন, জিয়াউল হাসান বাবু, অপুসহ এলাকার হাজার হাজার লোকজন উপস্থিত ছিলেন।