এবার আরব আমিরাতের জালে বাংলাদেশের ৭ গোল

ক্রীড়া ডেস্ক(আজকের নারায়নগঞ্জ) : এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাইপর্বের তৃতীয় ম্যাচে আজ শুক্রবার সংযুক্ত আরব আমিরাতের মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ। বড় জয় তুলে নেওয়ার লক্ষ্যে গোলাম রাব্বানী ছোটনের শিষ্যরা মাঠে নামলেও ৭ গোলের বেশি করতে পারেনি তারা। আমিরাতের বিপক্ষে প্রথমার্ধে ৫ গোল করে বাংলাদেশ। দ্বিতীয়ার্ধে মুহুর্মূহ আক্রমণ শানিয়েও ২টির বেশ গোল পায়নি।

বাংলাদেশের হয়ে আজ হ্যাটট্রিক করেছেন অনুচিং মোগিনি। একটি করে গোল করেছেন শামসুন্নাহার, আনাই মোগিনি ও ইলামনি। একটি গোল এসেছে আত্মঘাতি খাত থেকে।

অবশ্য ৭-০ গোলে জিতেও শেষ ম্যাচের দিকে তাকিয়ে থাকতে হচ্ছে বাংলাদেশকে। রোববার এফ গ্রুপের শেষ ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভিয়েতনাম। তারাও আজ সকালে লেবাননের বিপক্ষে ৭-০ গোলে জয় পেয়েছে। বাংলাদেশ ও ভিয়েতনাম উভয়েই তিন ম্যাচের তিনটিতেই জিতেছে। তাদের পয়েন্ট পূর্ণ ৯। গোল ব্যবধান ২৫! পরের পর্বে যেতে হলে রোববার ভিয়েতনামের বিপক্ষে জিততেই হবে বাংলাদেশকে। আমিরাতের বিপক্ষে আজ একটি গোল বেশি করতে পারলে শেষ ম্যাচে ভিয়েতনামের বিপক্ষে ড্র করলেও গোল ব্যবধানে এগিয়ে থেকে পরের পর্বে যেতে পারত। যেহেতু ঘরের মাঠে খেলা। সেহেতু ভিয়েতনামের বিপক্ষে শেষ ম্যাচ জিতেই পরের পর্বে যেতে চায় বাংলাদেশ।

শুক্রবার কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে ম্যাচের ৭ মিনিটেই এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। এ সময় বল নিয়ে তহুরা খাতুন ডি বক্সের মধ্যে ঢুকলে তাকে ফেলে দেন আরব আমিরাতের ঘালিয়া রামাধান। সঙ্গে সঙ্গে রেফারি পেনাল্টির বাঁশি বাজান। পেনাল্টি থেকে গোল করে বাংলাদেশকে এগিয়ে নেন শামসুন্নাহার।

২৭ মিনিটে বাংলাদেশের ব্যবধান বাড়ান অনুচিং মোগিনি। এ সময় বাম প্রান্ত থেকে রক্ষণভাগের খেলোয়াড় আঁখি খাতুনের ক্রসে হেড দেন আনুচিং মগিনির। তার হেড দ্বিতীয় পোস্টে লেগে জালে আশ্রয় নেয়। ম্যাচের ৩৫ মিনিটে অনুচিং মোগিনি নিজের জোড়া গোল পূর্ণ করলে বাংলাদেশ এগিয়ে যায় ৩-০ ব্যবধানে। এই গোলেও তাকে সহায়তা করেন বড় বোন আনাই মোগিনি। ৩৭ মিনিটে অসাধারণ এক গোল করে ব্যবধান ৪-০ করেন অনুচিং। পাশাপাশি নিজের হ্যাটট্রিকও পূর্ণ করেন।

এ সময় মাঝ মাঠে থ্রো ইন থেকে বল পেয়ে যান আনাই মোগিনি। তিনি বল বাড়িয়ে দেন ডি বক্সের সামনে থাকা রোজিনা আক্তারকে। রোজিনাকে বল বাড়িয়ে দিয়েই তিনি দৌড়ে ডি বক্সের সামনে চলে যান। রোজিনা একটু সামনে এগিয়ে গিয়ে ডানদিকে আবার আনাই মোগিনিকে বল বাড়িয়ে দেন। সেখান থেকে উঁচু করে ডি বক্সের মধ্যে শট নেন। আমিরাতের রক্ষণভাগের খেলোয়াড় লাফিয়ে উঠে গোললাইনের সামনে থেকে বল ক্লিয়ার করেন। বল পেয়ে যান পেনাল্টি বক্সের মধ্যে থাকা অনুচিং মোগিনি। তিনি লাফিয়ে উঠে বাইসাইকেল কিক নেন। বল জালে আশ্রয় নেয়।

প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে (৪৫+২) আত্মঘাতি গোলে ব্যবধান হয় ৫-০। এ সময় কর্নার পায় বাংলাদেশ। কর্নার কিক থেকে মনিকা চাকমার নেওয়া শট ক্লিয়ার করতে গিয়ে নিজেদের জালে জড়িয়ে দেয় আমিরাতের রক্ষণভাগের একজন খেলোয়াড়। তাতে ৫-০ গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় ছোটনের শিষ্যরা।

দ্বিতীয়ার্ধে আক্রমণের ধার বাড়ায় বাংলাদেশ। গোল ব্যবধান বাড়াতে একের পর এক আক্রমণ শানিয়ে যায়। কিন্তু গোল পাচ্ছিল না। ম্যাচের ৭২ মিনিটের মাথায় গিয়ে ষষ্ঠ গোলের দেখা পায় বাংলাদেশ। এ সময় আনাই মগিনি বাম দিক দিয়ে বক্সের বাইরে থেকে শট নিলে বল গোলরক্ষকের মাথার উপর দিয়ে জালে আশ্রয় নেয়। ম্যাচের যোগ করা সময়ে (৯০+৪) ইলামনি গোল করে বাংলাদেশের ৭-০ ব্যবধানের জয় নিশ্চিত করেন।

আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কমলাপুরে হবে এই প্রতিযোগিতা। লিগ পদ্ধতিতে অনুষ্ঠিত এই গ্রুপ থেকে চ্যাম্পিয়ন হওয়া দল সুযোগ পাবে পরবর্তী বাছাইপর্ব খেলার। এবারের এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাইপর্বে অংশ নেওয়া ছয় গ্রুপের শীর্ষ ছয় দল ও সেরা দুই রানার্স-আপ দল নিয়ে হবে আরেক বাছাই। সেখান আটটি দলকে দুই গ্রুপে ভাগ করে হবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা। দুই গ্রুপ থেকে সেরা চারটি দল সুযোগ পাবে চূড়ান্তপর্বে খেলার। আগেই চূড়ান্তপর্ব নিশ্চিত করে রেখেছে আয়োজক থাইল্যান্ড, ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়ন উত্তর কোরিয়া, রানার্স-আপ দক্ষিণ কোরিয়া ও তৃতীয় হওয়া জাপান।

২০১৬ সালে বাংলাদেশে হয়েছিল এএফসির বাছাইপর্ব। সেবার বাংলাদেশ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে চূড়ান্তপর্বে জায়গা করে নিয়েছিল। অবশ্য থাইল্যান্ডে চূড়ান্তপর্বে আট দলের মধ্যে সপ্তম হয়েছিল।