দেশে আনা হচ্ছে মোনালিসার খুনী ধর্ষক আবু সাঈদকে!

স্টাফ রিপোর্টার(আজকের নারায়নগঞ্জ): রোববার (২৩ সেপ্টেম্বর) দেশে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে ফতুল্লার কাশিপুর বাংলাবাজার আমবাগান এলাকায় স্কুলছাত্রী মোনালিসা আক্তার হত্যাকান্ডের মামলার প্রধান আসামী আবু সাইদকে । এরআগে আন্তর্জাতিক পুলিশ সংস্থা (ইন্টারপোল) এর মাধ্যমে সংযুক্ত আরব আমিরাতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মোনালিসাকে ধর্ষণের পর হত্যা করে লাশ ঘরের ভেতর ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে রেখে পালিয়ে যায় আবু সাইদ। পরে গ্রেপ্তার এড়াতে ছুটি শেষ হওয়ার আগেই দুবাই চলে যায়। প্রবাসী আসামী আবু সাঈদ ফতুল্লা পশ্চিম দেওভোগ বড় আমবাগান এলাকার ইকবাল হোসেনের ছেলে।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি শাহ মঞ্জুর কাদের আসামী আবু সাইদকে রোববার দেশে আনার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গণমাধ্যমকে জানান, গত ১৭ সেপ্টেম্বর ইন্টারপোলের মাধ্যমে আসামী আবু সাঈদকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাজধানী দুবাইয়ে গ্রেপ্তার করা হয়। তাকে দেশে নিয়ে আসার পর আইনী কার্যক্রম শুরু হবে।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ২ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যায় সদর উপজেলার পশ্চিম দেওভোগ বাংলাবাজার বড় আমবাগান এলাকায় নিজ বাড়ি থেকে স্কুল ছাত্রী মোনালিসার (১২) ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। সে উক্ত এলাকার শাহিন বেপারীর মেয়ে এবং কাশিপুর উজির আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী ছিল।

ঘটনার দিন মোনালিসা ও তার ছোট ভাই সাহেদকে বাড়িতে রেখে সকালে বাবা শাহিন বেপারী স্ত্রীকে নিয়ে নরসিংদী শ্বশুর বাড়িতে বেড়াতে যান। পরে তারা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মোনালিসার মরদেহ উদ্ধারের কথা জানতে পারেন ।
শাহিন বেপারী জানিয়েছিলেন, বিকেলে তার বাড়ির ভাড়াটিয়া তাকে ফোন করে জানান- অজ্ঞাত এক যুবক তার ঘরে প্রবেশ করে কিছুক্ষণ পরে বের হয়ে যায়। পরে মোনালিসার ছোট ভাইয়ের ডাক-চিৎকারে এসে দেখে মোনালিসা ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওড়না প্যাঁচানো ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে। ঘরে প্রবেশ করে ওই ভাড়াটিয়া ও তাঁর ছোট ছেলে ওড়না কেটে ঝুলন্ত অবস্থা থেকে নিচে নামিয়ে মোনালিসাকে হাসপাতালে নিয়ে যান।

মোনালিসার ছোট ভাই শাহেদ জানিয়েছিল, ঘটনার দিন বিকেলে পানি পান করার কথা বলে ঘরে ঢুকে একই এলাকার ইকবাল হোসেনের ছেলে সাঈদ। পরে কৌশলে শাহেদকে খেলতে বাইরে পাঠিয়ে দেয়া হয়। সন্ধায় শাহেদ বাসায় ফিরে দেখে মোনালিসা ফ্যানের সাথে ঝুলছে।

ঘটনার তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে, মোনালিসাদের পাশের বাড়িতেই থাকে সাঈদ। কয়েক বছর আগে মোনালিসা মুনাকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিল সাঈদের পরিবার। কিন্তু মেয়ের বয়স অল্প হওয়ায় সাঈদের প্রস্তাবে রাজি হননি মুনার বাবা মা। পরে সাঈদ পাশের মহল্লার ইভা নামে এক মেয়েকে বিয়ে করে। পরে ২ ফেব্রয়ারী মোনালিসাকে বাড়িতে একা পেয়ে ধর্ষণের পর হত্যা করে। ব্যাপারটি আত্মহত্যা হিসেবে চালিয়ে দেয়ার জন্য লাশ ফ্যানের সাথে ঝুঁলিয়ে পালিয়ে যায় আবু সাইদ।
তবে ঘটনার দিনই আবু সাঈদ দুবাই পালিয়ে যায় বলে নিশ্চিত করেছিলো তার পরিবার। বিয়ে করার জন্য সাঈদ ঘটনার তিন মাস আগে দেশে আসেন। অগ্রিম রিটার্ন টিকেট থাকায় পালিয়ে যেতে কোনো বেগ পেতে হয়নি। কিন্তু শেষ রক্ষা হল না। মোনালিসার মামলায় তাকে দেশে ফিরে আসতেই হচ্ছে।