লেবাননকে ৮-০ গোলে হারালো বাংলাদেশের মেয়েরা

ক্রীড়া ডেস্ক(আজকের নারায়নগঞ্জ):  বাংলাদেশের মেয়েদের সামনে কোনও কিছুই যেন দাঁড়াতে পারছে না। যে দলই আসছে তারাই খড়কুটোর মতো উড়ে যাচ্ছে। তাদের জয়ের পিপাসা দেখে মনে হচ্ছে সাফের ফাইনালে পরাজয় তারা কিছুতেই ভুলতে পারছে না। আর সেই শিরোপা হারানোর ক্ষোভেই পুড়ছে প্রতিপক্ষ দলগুলো
আগের ম্যাচে বাহরাইনকে ১০ গোলে হারানোর পর আজ আরেকটি বড় জয় পেলো বাংলাদেশ। বুধবার কমলাপুর বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে এএফসি অনূর্ধ্ব ১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাই পর্বে ৮-০ গোলে লেবাননকে পরাজিত করে লাল-সবুজের জার্সিধারীরা।
প্রথমার্ধেই বাংলাদেশ পাঁচ গোলে এগিয়ে যায়। বিরতির পর করে আরও তিন গোল। জোড়া গোল করেছেন সাজেদা, তহুরা, শামসুন্নাহার। একটি করে গোল করেছেন আনাই ও রোজিনা। এ জয়ে বাংলাদেশ দুই ম্যাচে ৬ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের শীর্ষে।
আগের ম্যাচে জোড়া গোল করা আনুচিং মগিনিকে বাইরে রেখে প্রথম একাদশ মাঠে নামান কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন। মূল একাদশে সুযোগ পান সাজেদা। সুযোগ পেয়েই এদিন গোল করে দলের উৎসবের শুরু করেন।
ম্যাচের শুরুতে একাধিক সুযোগ নষ্টের পর ১৪তম মিনিটে গোলের দেখা পায় বাংলাদেশ। মনিকা চাকমার অ্যাসিস্ট থেকে লেবাননের এক ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে গোল করেন সাজেদা।
১৯ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে বাংলাদেশ। এবার গোলদাতা তহুরা। গোলপোস্ট উদ্দেশ্য করে তহুরার নেয়া শট ক্লিয়ার করতে গিয়ে নিজেদের জালে বল পাঠান লেবাননের শোফিয়ে।
এ গোলের চার মিনিট পরেই নিজের দ্বিতীয় ও দলের হয়ে তৃতীয় গোল পান তহুরা। ২৩তম মিনিটে আঁখি খাতুনের লম্বা পাস ধরে বক্সে ঢুকে দুর্দান্ত গোল করেন এ স্ট্রাইকার (৩-০)
২৬ মিনিটে গোলের ব্যবধান চার এ উন্নীত করে বাংলাদেশ। আঁখির পাস থেকে ডান প্রান্ত দিয়ে ঢুকে কোনাকুনি শটে গোল করেন আনাই (৪-০)। ৪০ মিনিটে আঁখির লম্বা পাস ধরে নিজের দ্বিতীয় গোল পূরণ করেন সাজেদা। সেই সঙ্গে বাংলাদেশের লিড হয় (৫-০)।
পাঁচ গোলে পিছিয়ে থেকে বিরতিতে যায় লেবানন। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই আবারো ব্যবধান বাড়িয়ে নেয় স্বাগতিক কিশোরীরা। ৪৮তম মিনিটে লেবাননের এক ডিফেন্ডারের কাছ থেকে বল কেড়ে নিয়ে শামসুন্নাহার জুনিয়র গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে বল জালে পাঠিয়ে ব্যবধান ৬-০ করেন।
৬৩তম মিনিটে শামসুন্নাহার জুনিয়র নিজের দ্বিতীয় ও দলের সপ্তম গোল করেন। সুলতানার নিচু ক্রস ধরে গোল করেন এ ফরোয়ার্ড। হ্যাটট্রিকের সুযোগ থাকলেও শামসুন্নাহার জুনিয়র ও তহুরাকে তুলে নেন ছোটন। তহুরার পরিবর্তে রোজিনা আর শামসুন্নাহার জুনিয়রের পরিবর্তে ইলামনিকে মাঠে নামানো হয়।
ম্যাচের ৭৩তম মিনিটে বদলি হিসেবে নামা ইলামনির পাস থেকে রোজিনা দলের অষ্টম গোলটি করেন। এরপর আরো বেশ কয়েকটি গোলের সুযোগ তৈরি করেও সেগুলো থেকে গোল আদায় করে নিতে পারেনি ছোটনের শিষ্যরা।
তৃতীয় ম্যাচে আগামী শুক্রবার মারিয়া মান্ডা-শামসুন্নাহারদের প্রতিপক্ষ সংযুক্ত আরব আমিরাত। আর ২৩ সেপ্টেম্বর শেষ ম্যাচে বাংলাদেশ খেলবে ভিয়েতনামের মেয়েদের বিপক্ষে।