নওগাঁয় ১৫ ব্যাগ মানুষের রক্তসহ যুবক অাটক!

 

নওগাঁ থেকে  মাহবুবুজ্জামান সেতু(আজকের নারায়নগঞ্জ): নওগাঁয় অবৈধভাবে সংরক্ষণ করা মানুষের বিভিন্ন গ্রুপের ১৫ ব্যাগ রক্তসহ মিলন জোয়ার্দ্দার (৩৬) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার গভীর রাতে সদর উপজেলার পিরোজপুর গ্রামে আটক মিলনের বাড়ি থেকে রক্তগুলো উদ্ধার করা হয়।

মিলন ওই গ্রামের আব্দুল খালেক জোয়ার্দ্দারের ছেলে।

এ ঘটনায় নওগাঁ সিভিল সার্জন অফিস মেডিকেল অফিসার ডা. আশিষ কুমার সরকার বাদী হয়ে মামলা করেছেন।

নওগাঁ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল হাই বলেন, মিলন জোয়ার্দ্দার মাদকসেবীদের তার বাড়িতে নিয়ে এসে অবৈধ ভাবে রক্ত সংগ্রহ করেন।

পরে এসব রক্ত বিভিন্ন ক্লিনিকে সরবরাহ করে থাকেন।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থানার এসআই আব্দুর রাজ্জাক সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে অভিযান চালিয়ে মিলনের বাড়ির ফ্রিজে সংরক্ষণ করে রাখা ১৫ ব্যাগ (৬ হাজার ৫৭০ মিলি) বিভিন্ন গ্রুপের রক্ত উদ্ধার ও মিলনকে আটক করে।

এ ঘটনায় বিলনের বিরুদ্ধে রক্ত, রক্তের উপাদান ও রক্তজাত সামগ্রী সংগ্রহ, উৎপাদন ও বিতরণের উদ্দেশ্যে নিজ হেফাজতে রাখায় রক্ত পরিসঞ্চালন আইন, ২০০২ এর ১৮/২৪ ধারায় মামলা হয়েছে।

নওগাঁ সিভিল সার্জন ডা. মুমিনুল হক বলেন, সাধারণত চারমাস পর পর রক্ত দেয়ার নিয়ম।

কিন্ত যারা মাদক সেবন করে তারা টাকার লোভে ২-৩ মাস পর পর রক্ত দেয়। যার কারণে রক্তকণিকাগুলো পরিপূর্ণতা পায়না।

ফলে যতটুকু উপকার হওয়ার কথা তা হয় না।

এছাড়া রক্ত ক্রসম্যাচিং ও বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা করার দরকার হলেও তারা সেটা করে না।

যদি কোনো ক্লিনিক এ কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত থাকে তাহলে তদন্ত করে ওই ক্লিনিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করে বন্ধ করে দেয়া হবে বলেও জানান এ কর্মকর্তা।