কথাসাহিত্যিক সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর সম্পত্তি আত্মসাতের অভিযোগে মামলা

আজকের নারায়নগঞ্জঃ  প্রয়াত কথাসাহিত্যিক সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর সম্পত্তি আত্মসাতের অভিযোগে ঢাকার সিএমএম আদালতে মামলা করা হয়েছে।

রোববার সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর একমাত্র ছেলে ফ্রান্স ও বাংলাদেশের দ্বৈত নাগরিক ইরাজ ওয়ালীউল্লাহ মামলাটি দায়ের করেন।

ঢাকা মহানগর হাকিম সত্যব্রত শিকদার বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে মামলাটি সিআইডকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

বাদীর পক্ষে যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর রানা দাশগুপ্ত এবং ঢাকা বারের প্রাক্তন সভাপতি কাজী নজিব উল্লাহ হিরু মামলা পরিচালনা করেন।

মামলার শুনানিকালে সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর মেয়ে সিমিন ওয়ালীউল্লাহও আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

মামলায় প্রয়াত সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর আপন মামাতো ভাই কামাল জিয়াউল ইসলাম ওরফে কে জেড ইসলাম (৮২), জিয়াউল ইসলামের স্ত্রী খাদিজা ইসলাম (৬৯) ও ছেলে রায়হান কামালকে (৩২) আসামি করা হয়েছে।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ১৯৬২ সালের ১১ এপ্রিল জনৈক মোহাম্মাদ আশরাফ আলী গুলশান আবাসিক মডেল টাউনের ৯৬ নং রোর্ডের, সিইএন(বি) ব্লকের ১০ নং প্লটের ২২ কাঠা সম্পত্তি তৎকালীন ডিআইটি বর্তমান রাজউকের কাছ থেকে লিজ গ্রহণ করেন। যা ডিআইটির অনুমতি নিয়ে ১৯৭০ সালের ১২ মার্চ সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর নামে রেজিস্ট্রি দলিল মূলে হস্তান্তর হয়।

মুক্তিযুদ্ধের সময় প্যারিসে চাকরি করার সময় ১৯৭১ সালের ১০ অক্টোবর মারা যান সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ। তখন গুলশানে তার ১ বিঘা ২ কাঠা জমির প্লট এবং ভবনের মালিকানা তার ফরাসি স্ত্রী আন ম্যারি ওয়ালীউল্লাহ (আজিজা নাসরিন) এবং তাদের দুই সন্তান ইরাজ ওয়ালীউল্লাহ ও সিমিন ওয়ালীউল্লাহর নামে নামজারি করা হয়।

প্যারিসে অবস্থানরত ইরাজ ও তার মা-বোন ওই বাড়ি দেখাশোনার জন্য ১৯৮১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর ওয়ালীউল্লাহর আপন মামাতো ভাই কামাল জিয়াউল ইসলামকে আম-মোক্তারনামা দিয়েছিলেন। কিন্তু আসামিরা ১৯৮১ সালের ৫ মে ওই আম-মোক্তারনামা দেখিয়ে সেখানে সম্পত্তি বিক্রয় এবং সাধারণ বিমা কপোরেশনের কাছে সম্পত্তি বন্ধক প্রদানের ক্ষমতা অর্পিত মর্মে উল্লেখ করে নেন।

সে অনুযায়ী আসামি জিয়াউল ইসলাম সাধারণ বীমা করপোরেশনের কাছ থেকে বাদী ও তার পরিবারের অজ্ঞাতে ওই সম্পক্তি বন্ধক রেখে ঋণ গ্রহণ করেন। আম-মোক্তারনামায় মালিকের স্বার্থ যথাযথভাবে সংরক্ষণ ও ব্যবস্থাপনার কথা থাকলেও কামাল জিয়াউল ইসলাম তার স্ত্রী ও ছেলের সঙ্গে যোগসাজশে প্রতারণার মাধ্যমে ওই ভবন ও জমির মালিক সেজে তা আত্মসাৎ করার জন্য তাদের নিজস্ব প্রতিষ্ঠান ‘নির্মাণ বিল্ডার্স’কে দিয়ে সেখানে বহুতল ভবন নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছেন।

মামলায় আরো বলা হয়, ওই আম-মোক্তারনামা পাওয়ার আগে আসামিরা পরস্পর যোগসাজসে জালিয়াতির মাধ্যমে আরেকটি আম-মোক্তারনামা তৈরি করে ওই জমি ও ভবন বন্ধক দিয়ে ঋণ নেন এবং পরে আবার তা ফিরিয়ে দেন। অথচ জমি ও ভবনের প্রকৃত মালিকরা ওই ক্ষমতা দিয়ে কোনো আম-মোক্তারনামা তাদের দেননি।

‘লাল সালু’ ‘কাঁদো নদী কাঁদো’ উপন্যাসের লেখক সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ ১৯৫১ ও ৬০ এর দশকে পাকিস্তান সরকারের কর্মকর্তা হিসেবে বিভিন্ন দেশে কূটনৈতিক দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৬০ থেকে ১৯৬৭ সাল পর্যন্ত প্যারিসে পাকিস্তান দূতাবাসের ফার্স্ট সেক্রেটারির দায়িত্ব পালনের পর ১৯৭১ সাল পর্যন্ত তিনি প্যারিসে ইউনেস্কোর প্রোগ্রাম স্পেশালিস্ট হিসেবে কাজ করেন। ওই বছর মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি প্রবাসে থেকেই বাংলাদেশে স্বাধীনতার পক্ষে প্রচার চালান।

অন্যদিকে নির্মাণ বিল্ডার্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কামাল জিয়াউল ইসলাম এক সময় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি ছিলেন। কামাল জিয়াউল ইসলামের স্ত্রী খাদিজা ইসলাম নির্মাণ বিল্ডার্সের চেয়ারম্যান। তাদের ছেলে রায়হান কামাল ও রাহাত কামাল নির্মাণ বিল্ডার্সের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য।