শুক্কুর মাহমুদের কার্যালয় সরানোর অনুরোধ সেলিম ওসমানের

সদর(আজকের নারায়নগঞ্জ):  নারায়ণগঞ্জ শহর ও বন্দরের মাঝে যোগাযোগ ব্যবস্থা আরো উন্নত করতে এবং জনগনের চাহিদা বিবেচনায় বরফকল-আকিজ সিমেন্ট (কুলুপাড়া) খেয়াঘাট দিয়ে আরো একটি ফেরী সার্ভিস চালু করতে নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খাঁন এর কাছে দাবী রেখেছেন নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান।

সেই সাথে তিনি, বিআইডব্লিউটিএ মালিকানাধীন জমিতে নির্মিত চৌরাঙ্গী ফ্যান্টাসি পার্কের সম্মুখে থাকা শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যালয়টি অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার জন্য শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি শুক্কুর মাহমুদের প্রতি অনুরোধ রাখেন।

উক্ত শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যালয়টি অন্যত্র স্থানান্তর এবং বৃহৎ আকারে আধুনিক ইউনিয়ন কার্যালয় নির্মাণ করে দেওয়ার জন্য নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খানের কাছে জোরালো দাবী রাখেন।

পাশাপাশি ফেরী সার্ভিস চালু হওয়া দুটি ঘাটের জন্য আরো ৩টি ফেরী বরাদ্দ দেওয়ার জন্য মন্ত্রীর কাছে জোরালো দাবী রেখেছেন তিনি।

যার পরিপ্রেক্ষিতে নারায়ণগঞ্জের মানুষের যা প্রয়োজন সে সকল উন্নয়ন কাজই তিনি সম্পন্ন করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাহাজাহান খাঁন।

শুক্রবার (১৪ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টায় শহরের খানপুর বরফকল ঘাট সংলগ্ন এলাকায় বিআইডব্লিউটিএ এর ড্রেজার বেইজ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী শাহজাহান খাঁন এর কাছে এ দাবী উত্থাপন করেন এমপি সেলিম ওসমান।

বরফকল ঘাট দিয়ে আরো একটি ফেরী সার্ভিস চালু করার ব্যাপারে তিনি বলেন, বন্দর ও নারায়ণগঞ্জের মাঝে যোগাযোগের দুরুত্ব ঘোচাতে হাজীগঞ্জ-নবীগঞ্জ এবং ৫নংঘাট-বন্দর সেন্ট্রাল খেয়াঘাট দিয়ে পৃথক দুটি ফেরী সার্ভিস চালু হয়েছে। কিন্তু ফেরীর সংখ্যা কম হওয়ায় এখানে মানুষকে প্রায় এক থেকে দেড় ঘন্টা সময় লাইনে অপেক্ষা করে নদী পারাপার হতে হয়।

যার ফলে মানুষের দুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে। উক্ত ঘাট দুটোতে কমপক্ষে আরো ৩টি ফেরী বরাদ্দ দিলে জনগনের কাঙ্খিত সেবা প্রদান করা সম্ভব হবে। তাই উক্ত দুটি ঘাটে আরো ৩টি ফেরী বরাদ্দ দেওয়ার জন্য আপনার কাছে জোর দাবী জানাচ্ছি।

পাশাপাশি বরফকল ঘাট দিয়ে আরো একটি ফেরী সার্ভিস চালু করা অত্যন্ত জরুরি। এই ঘাটে ফেরী সার্ভিস চালু করতে পারলে বন্দর ও নারায়ণগঞ্জের যোগাযোগের দুরত্ব গুচানো সম্ভব হবে। সেই সাথে বন্দর ও নারায়ণগঞ্জের ব্যবসায়ী কর্মকান্ড আরো বৃদ্ধি পাবে। অপরদিকে যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত করে যাতায়াতের দুরত্ব কমিয়ে আনা গেলে বন্দরে অসংখ্য শিল্পকারখানা গড়ে উঠবে। যার ফলে বন্দরে বেকারত্বের হার কমে আসবে।

সেই সাথে বন্দরের ফসলি জমি গুলো আর অনাবাদি থাকবে না। কৃষকরা তাদের উৎপাদিত কৃষিপন্য অল্প খরচে খুব সহজেই নারায়ণগঞ্জে এনে বিক্রি করতে পারবে। তাই বরফকল ঘাট দিয়ে আরো একটি ফেরী সার্ভিস চালু করা এখন সময়ের ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে।

নৌ-পরিবহন মন্ত্রী মহোদয় অতীতেও আমার দাবী গুলো সম্পূর্নভাবে পূরন করেছেন। আমি আশা রাখছি এবারেও উনি আমাকে নিরাশ করবেন না। কারন আমি নিজের জন্য কিছু চাইনি। জনগনের চাহিদার কথাটা আমরা মুখ দিয়ে বলেছি। আমি জানি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মতো উনিও নারায়ণগঞ্জের মানুষকে অত্যন্ত ভালোবাসেন এবং নারায়ণগঞ্জের মানুষও উনাকে প্রাণের চেয়ে বেশি ভালবাসেন। নারায়ণগঞ্জের মানুষের ভালোবাসার মূল্যায়ন তিনি অবশ্যই করবেন।

শ্রমিক ইউনিয়ন কার্যালয়টি স্থানান্তরের কথা উল্লেখ করে সেলিম ওসমান বলেন, প্রথমেই ব্যবসায়ী সাত্তার হোসেনকে ধন্যবাদ জানাই যে উনি বিআইডব্লিউটিএ এর কাছ থেকে জমিটি নিয়ে এখানে নারায়ণগঞ্জের মানুষের বিনোদনের জন্য একটি পার্ক নির্মাণ করেছেন।

এ জন্য বিআইডব্লিউটিএ চেয়ারম্যান কমোডর মোজাম্মেল হক এবং নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খাঁনকের প্রতি আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি, উনারা নারায়ণগঞ্জ বাসীরকে সজীব নি:শ্বাস নেওয়ার সুযোগ করে দিয়েছেন। সেই সাথে পার্কের আওতায় নদীতে ভাসমান জাহাজের ভেতরে  যে রেস্টুরেন্টটি নির্মাণ করা হয়েছে সেটি অত্যন্ত যুগোপযোগী উদ্যোগ বলা চলে।

প্রতিদিন কমপক্ষে দেড় থেকে দুইশ বিদেশী বায়ার নারায়ণগঞ্জ শহরে আসে। আমরা তাদেরকে নিয়ে এই জাহাজের রেস্টুরেন্টে মধ্যাহ্ন ভোজ ও নৈশ ভোজের আয়োজন করতে পারি। যার ফলে নারায়ণগঞ্জের অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে এই পার্কটি ভূমিকা রাখতে। কিন্তু এখানে আসার পর জায়গা সংকুলনের কারনে গাড়ি পাকিং সমস্যা দেখা দেয়। তাই শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যালয়টি স্থানান্তর করা গেলে এ সমস্যার সমাধান হবে।

বিআইডব্লিউটিএ এর চেয়ারম্যান কমোডর মোজাম্মেল হক এর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খান, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান, নৌ-পরিবহন মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব ভোলা নাথ দে, নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক রাব্বি মিঞা, বিআইডব্লিউটিএ এর সিনিয়র পরিচালক আব্দুল আউয়াল, নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মনিরুল ইসলাম, লঞ্চ মালিক সমিতির সভাপতি বদিউজাম্মান, বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ জোনের যুগ্ম পরিচালক গুলজার হোসেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ জোনের বিদায়ী যুগ্ম পরিচালক এ.কে.এম আরিফ উদ্দিন।