‘বেদের মেয়ে জ্যোস্না’র প্রতি কাঞ্চনের প্রতিশোধ!

 বিনোদন ডেস্ক(আজকের নারায়নগঞ্জ): দীর্ঘ দুই যুগ পর অঞ্জু ঘোষের ওপর প্রতিশোধ নিলেন নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। ৯ সেপ্টেম্বর রোববার এফডিসিতে এই মধুর প্রতিশোধ নেন ইলিয়াস কাঞ্চন। ২২ বছর প্রবাস জীবন কাটিয়ে সম্প্রতি দেশে ফিরেছেন ‘বেদের মেয়ে জোসনা’খ্যাত অঞ্জু ঘোষ। এ উপলক্ষে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি অঞ্জু ঘোষকে আজীবন সদস্যপদ দেয় গতকাল। অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয় অঞ্জু ঘোষের সহশিল্পী ও সাংবাদিকদের। সেখানেই প্রতিশোধ নেন অঞ্জুর নায়িকা ইলিয়াস।

বিকেল ৪টা ২০ মিনিটে শুরু হয় সংবাদ সম্মেলন। সেখানে একটু দেরিতে এসে পৌঁছান নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। একে অপরকে দেখে জড়িয়ে ধরেন তাঁরা। অঞ্জু ঘোষকে ফুলের মালা পরিয়ে দেন ইলিয়াস কাঞ্চন। তখন তিনি বলেন, “আমি এত দিন পর প্রতিশোধ নিতে পারলাম। আমরা যখন ’৮৮ সালে ছবির শুটিং করি, তখন থেকেই তাঁর জন্য অপেক্ষা করছি আর গান গাইছি ‘বেদের মেয়ে জোসনা আমায় কথা দিয়েছে/ আসি আসি বলে জোসনা ফাঁকি দিয়েছে’, গান গাইছি আর অপেক্ষা করছি তাঁর জন্য। ছবি রিলিজের পর তো এ গানের কথা মানুষের মুখে মুখে ছিল এক দশকের বেশি সময় ধরে। তার মানে এই অপেক্ষা দীর্ঘ হয়েছে।”

কিন্তু অপেক্ষা করিয়ে রাখার প্রতিশোধ ইলিয়াস কাঞ্চন নিলেন গতকাল। বললেন, ‘আমি জায়েদ খানকে ফোন করে জানলাম, সংবাদ সম্মেলন কখন হবে। তখন জায়েদ জানাল সাড়ে ৩টায়। তার পর থেকে আমি চিন্তা করে রেখেছিলাম, এবার অঞ্জুর ওপর প্রতিশোধ নেব। ছবিতে তাঁর জন্য অপেক্ষা করেছি, এবার সে আমার জন্য অপেক্ষা করবে। সে হিসেবে আমি সাড়ে ৪টার পর অনুষ্ঠানে এসেছি, যেন অঞ্জু আমার জন্য অপেক্ষা করে।’

এমন কথা শুনে আবারও আবেগে ইলিয়াস কাঞ্চনকে জড়িয়ে ধরেন অঞ্জু ঘোষ। চোখের পানি আড়াল করার চেষ্টা করেন তিনি। এ সময় সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের মুখোমুখি হন একসময়ের তুমুল জনপ্রিয় এই নায়িকা। অনুষ্ঠানে ইলিয়াস কাঞ্চন ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন মিশা সওদাগর, জায়েদ খান, নায়িকা অঞ্জনা ও আহমেদ শরীফ।

১৯৯৬ সালে দেশ ছাড়েন অঞ্জু ঘোষ। তখন থেকেই কলকাতায় বসবাস করছেন এই নায়িকা। কলকাতায় বেশ কিছু চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছেন তিনি। অঞ্জুর প্রকৃত নাম অঞ্জলি। ১৯৭২ থেকে ১৯৮১ সাল পর্যন্ত চট্টগ্রামের মঞ্চনাটকে অভিনয় করেন। ১৯৮২ সালে চলচ্চিত্র নির্মাতা এফ কবির চৌধুরী চলচ্চিত্রে আনেন তাঁকে। অঞ্জুকে নিয়ে তৈরি করেন ‘সওদাগর’। এরপর ১৯৮৯ সালে ‘বেদের মেয়ে জোসনা’ তাঁকে এনে দেয় তুমুল জনপ্রিয়তা। ঢালিউডে প্রায় ৫০টি ছবির অভিনেত্রী তিনি।