দানের টাকার হিসাব চাওয়ায় পূর্ব ইসদাইরে মাদ্রাসায় শিল্পপতির উপর হামলা,

 

সংবাদদাতা,ফতুল্লাঃ সদর উপজেলার ফতুল্লা থানাধিন পূর্ব ইসদাইরের জামিয়া কারিমিয়া মাদ্রাসায় দানের টাকার হিসাব চাওয়ায় মাদ্রাসার মুহতারিম আবু সায়েম খালেদ ও বাহিনীর হামলায় স্থানীয় শিল্পপতি আলহাজ্ব আবুল কাশেম আহত হওয়ার ঘটনা ঘটে।
এ সময় এলাকাবাসী ও মাদ্রাসার মুহতারিম বানিহীর মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করলে থানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে। এছাড়াও মুহতারিমের বিরুদ্ধে হজ্ব যাত্রীদের টাকা আত্মসাতের অভিযোগও রয়েছে।
গতকাল ২ জুন সকাল ০৯ টায় মাদ্রাসা অভ্যন্তরে এ ঘটনা ঘটে।
আবুল কাশেম জানান, মাদ্রাসার মুহতারিম আবু সায়েম খালেদ ও বাহিনী র্দীঘ দিন যাবৎ দানের টাকা আত্মসাৎ করে আসছে। এ বিষয়ে এলাকাবাসীর অভিযোগের কারণে মুহতারিমের কাছে তিনি বেশ কয়েকবার স্বচ্ছতা প্রমানের কথা বলা হলেও এবং কয়েকবার অন্যান্যদের মাওলানাদের নিয়ে বৈঠক করেও সে কোন হিসাব দিতে নারাজ। আজ সকালে তার কাছে হিসেব চাওয়া বিষয়টি বলা মাত্র ক্ষিপ্ত হয়ে তার বাহিনী নিয়ে আক্রমন করে। এ সময় তার ডান হাতে গুরুতর আহত হন। তিনি মুলত তার প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ভবনের স্থান পরিদর্শনের জন্য মাদ্রাসায় আসেন।
মাদ্রাসার মুহতারিম জানান, আবুল কাশেম কোন দান করেন না। তিনি জোড়র্পুবক মাদ্রাসার কর্তৃত্বে আসতে চায়। তার উপর আমি কোন হামলা করিনি।
ঘটনাস্থলে ফতুল্লা থানার দারোগা রোমান জানান, সকাল ৯ টায় এই মাদ্রাসায় উত্তেজনার সংবাদ পেয়ে র্ফোস নিয়ে এসেছি। তাতে মুহতারিম আবু সায়েম খালেদ এর বিরুদ্ধে পূর্বেও থানায় হজ্ব যাত্রীর অভিযোগ ছিলো।
জানাগেছে, জামিয়া কারিমিয়া মাদ্রাসা একটি কাউমী মাদ্রাসা। আর আবু সায়েম খালেদ এই মাদ্রাসায় ১৬ বৎসর যাবৎ শিক্ষকতার দায়িত্বে রয়েছেন। তিনি বর্তমানে মুহতারিম। এই মাদ্রাসার পরিচালনা কমিটির সভাপতি মাদ্রাসা বোর্ডের মহাসচিব মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস। স্থানীয় শিল্পপতি আজাদ নীট কম্পোজিট সহ একাধিক ফ্যাক্টরীর মালিক আবুল কাশেম প্রায় ৭ লক্ষ টাকা দান করেছেন। তিনি এই মাদ্রাসায় তার নিজ খরচে একটি বহুতলা ভবন নির্মান করে দেওয়ার ঘোষনা করেন। এভাবে আরো অনেক শিল্পপতি রয়েছে যারা এই মাদ্রাসায় লক্ষ লক্ষ টাকা দান করে আসছেন। অথচ এই মাদ্রাসাটি প্রায় ৩০ বৎসর পূর্বে স্থাপিত হলেও আজ পর্যান্ত তার অবকাঠামোগত উন্নয়ন হয়নি। শিক্ষকরা সঠিক ভাবে বেতন ভাতা পায়না, মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরাও খাবার সঠিক ভাবে পাচ্ছেনা। অথচ মাদ্রাসার মুহতারিমসহ কয়েক শিক্ষক বিলাশ বহুল চলাফেরায় এলাকাবাসীর কাছে তারা সন্দেহিন হয়ে উঠে। একপর্যায়ে অন্যান্য মাদ্রাসা মাওলানা ও বিশিষ্ট জনদের নিয়ে এই মাদ্রাসায় নুর মসজিদের খতিব মাওলানা আব্দুস সালামকে সদরে মুহতারিম করা হলেও তাকেও মানেনা মুহতারিম আবু সায়েম খালেদ। মাদ্রাসায় তার পুষ্ট শিক্ষক শিক্ষার্থীদের নিয়ে গড়া একটি বাহিনী রয়েছে।