কমিটি গঠন প্রক্রিয়ায় কেউই একক সিদ্ধান্ত নিচ্ছে না

না‘গঞ্জ জেলা বিএনপির যুগ্ন-আহবায়কদের যৌথ বিবৃতি

আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্কঃ  আহবায়ক কমিটি গঠিত হওয়ার পর থেকেই নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপিকে বিতর্কিত এবং দুর্বল করার উদ্দেশ্যে গণ মাধ্যমে একের পর এক মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ পরিবেশন করছে কুচক্রী মহল। তারা জেলা বিএনপির নষ্ট করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির যুগ্ন-আহবায়কদের যৌথ বিবৃতিতে বৃহস্পতিবার (৭ অক্টোবর) গণমাধ্যমে এ তথা জানানো হয়।

বিবৃতি প্রকাশের জন্য ধন্যবাদ জানান যুগ্ন আহ্বায়ক মনিরুল ইসলাম রবি, মো. নাছির উদ্দীন, আব্দুল হাই রাজু, লুৎফর রহমান আবদু, এড. মাহফুজুর রহমান হুমায়ুন, জাহিদ হাসান রোজেল ও নজরুল ইসলাম পান্না মোল্লা।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আপনারা সকলেই অবগত রয়েছেন যে, নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপিকে শক্তিশালী করার জন্য মাননীয় ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জনাব তারেক রহমানের নির্দেশে জেলা বিএনপির অধীনস্ত ৫টি থানা এবং ৫টি পৌরসভার বিএনপির কমিটি গঠনের কাজ চলমান রয়েছে। কিন্ত আহবায়ক কমিটি গঠিত হওয়ার পর থেকেই কতিপয় কুচক্রী মহল নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপিকে বিতর্কিত এবং দুর্বল করার উদ্দেশ্যে গণ মাধ্যমে একের পর এক মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ পরিবেশন করে জেলা বিএনপির ভাবমূর্তি তথা জেলা বিএনপির আহবায়ক এডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার এবং সদস্য সচিব অধ্যাপক মামুন মাহমুদ এর ভাবমূর্তি নষ্ট করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। জেলা কমিটির আওতাধীন ৫টি থানা ও ৫টি পৌরসভা কমিটি গঠনের লক্ষ্যে জনাব তারেক রহমানের নির্দেশে মোট ১০টি সার্চ কমিটি গঠন করা হয়। এই সার্চ কমিটির মাধ্যমে প্রেরিত প্রতিটি ইউনিটের ১টি করে মোট ১০টি রিপোর্ট দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান বরাবর জমা দেওয়া হয়। সেই আলোকে চেয়ারম্যান মহোদয় এর প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে বিভাগীয় সাংগঠনিক টিমের সার্বিক সহযোগিতায় এবং আমাদের সকল যুগ্ন-আহবায়কদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় জেলা বিএনপির আহবায়ক এবং সদস্য সচিব ঐক্যবদ্ধভাবে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সকল ইউনিটকে শক্তিশালী করে গড়ে তোলার জন্য অবিরাম কাজ করে যাচ্ছেন। কাজেই, কমিটি গঠন প্রক্রিয়ার আমরা কেউই এককভাবে কোনো প্রকার সিদ্ধান্ত নিচ্ছি না। আমাদের সকলের সক্রিয় অংশগ্রহণের মাধ্যমেই নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সকল কার্যক্রম এগিয়ে চলছে। বিএনপির চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া এবং ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জনাব তারেক রহমান এর হাতকে শক্তিশালী করার জন্য আমরা সকলে এডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার এবং অধ্যাপক মামুন মাহমুদের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ রয়েছি।’