আড়াইহাজারে ইমাম নিয়োগ নিয়ে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে আহত ২০,ভাংচুর

আড়াইহাজার(আজকের নারায়নগঞ্জ): আড়াইহাজারে মসজিদের ইমাম রাখাকে কেন্দ্র করে ২ পক্ষের রক্ষক্ষয়ী সংঘর্ষ নারীসহ অন্তত ২০ আহত হয়েছে। সোমবার সকাল ৮টায় উপজেলার উচিৎপুরা ইউনিয়নের আলীসাদী কান্দাপাড়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। ঘন্টা ব্যাপী চলে এই সংঘর্ষ। সংঘর্ষে আহত ১৫ জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। বাকীদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ওই গ্রামের মসজিদের ইমাম হিসেবে নামাজ পড়াচ্ছেন শফিকুল ইসলাম নামের এক ইমাম। কিšু‘ তার কোরআন পড়া শুদ্ধা হয়না বলে অভিযোগ করেন শহিদুল্লাহ নামের এক মুসল্লী। এতে ইমাম রাখা নিয়ে মুসল্লীরা বিভক্ত হয়ে যায়। শহিদুল্লাহর লোকজন ইমাম বিদায় করবে এবং অপর মুসল্লী কাসেম এর লোকজন ইমাম রাখতে চায় । যার ফলে ২ পক্ষের লোকজনের মধ্যে দীর্ঘ দিন ধরে উত্তেজনা বিরাজ করছিল ।

শুক্রবার রাতে এক দফা সংঘর্ষ। পরে সকালে উভয় পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে একে অপরের উপর ঝাপিয়ে পড়ে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ২০ জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে ১৫ জন আড়াইহাজার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। কাশেস অভিযোগ করেন, সংঘর্ষে চলাকালে শহিদুল্লাহর লোকজন পাশ্ববর্তী কাদির দিয়া গ্রামের লোকজন নিয়ে এসে আমাদের উপর হামলা চালায় এবং দোকান ও বাড়ীঘর ভাংচুর করে। আহতদের বেশীর ভাগই কাসেশের লোক বলে জানা গেছে।

আহতরা হলো, আবুল কাশেম, আরিফ, হুদয়, নাদিয়া, আনোয়ার হোসেন, শরিফা, শরিফ, ইতি আক্তার, মান্নান, মোবাবরক, বাবুল, পারুল, কাউছার, ফজলুল হক, শাহাজালাল, আমজাদ হোসেন, মোস্তফা, রিপন ও এলাহি।

আড়াইহাজার থানার ওসি এম এ হক জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।