একটি মহল দেশটাকে ধর্ম দিয়ে বিভক্ত করতে চায়- শামীম ওসমান

আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্ক:  নারায়ণগঞ্জে অতীতেও কেউ সাম্প্রদায়িকতা সৃষ্টি করতে পারেনি, ভবিষ্যতেও পারবে না- একথা উল্লেখ করে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি এ কে এম শামীম ওসমান বলেছেন, এই দেশ স্বাধীনতা যুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীন হয়েছে। সে সময় হিন্দু-মুসলিম-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান একত্রে যুদ্ধ করেছে। কিন্তু একটি মহল আছে যারা এই দেশটাকে ধর্ম দিয়ে বিভক্ত করতে চায়। এই দেশটাকে সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায় তারা। আমি একটা কথা পরিষ্কারভাবে জানিয়ে দিতে চাই, ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে, ষড়যন্ত্রের মোকাবেলা করা হবে। এই ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে আবারো এদেশকে একটি সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র বানানোর অপচেষ্টা চালানো হবে।

রবিবার (২ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টায় শহরের দুই নম্বর রেল গেইটের ডায়মন্ড চত্বরের সামনে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের শ্রী কৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উৎসব উপলক্ষে জন্মাষ্টমী শোভাযাত্রা উদ্ধোধনকালে তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় তিনি আরো বলেন, এই নারায়ণগঞ্জের পবিত্র মাটিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু আওয়ামীলীগ সৃষ্টি করেছেন। এই মাটিতে ৫২’র ভাষা আন্দোলন, ৬২, ৬৬ সহ, ৬৯ এর গণঅভ্যুত্থানের নেতৃত্ব দিয়েছে। এই মাটিতে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তিকে, গোলাম আজমকে নিষিদ্ধ করেছিলাম। আমাদের উপরে বোমা হামলা হয়েছে, চন্দন পা হারিয়েছে, অনেক নেতাকর্মী মারা গেছে, আহত হয়েছে তবুও আমরা নত স্বীকার করি নাই। এই দেশের মাটিতে কে হিন্দু, কে মুসলিম, কে বৌদ্ধ, কে খ্রিস্টান এটা বড় পরিচয় না। আমাদের প্রথম পরিচয় আমরা সবাই বাঙালি। আজকে যারা সাম্প্রদায়িকতার কথা বলে দেশকে বিভক্ত করতে চায়, আমি তাদের কথা মেনে নিতে রাজি আছি তখনই যখন আমাদের সবার রক্ত এই মাটিতে ঝড়ে পড়বে।

শামীম ওসমান বলেন, হিন্দুর রক্ত আর মুসলমানের রক্ত যেখানে সৃষ্টিকর্তাই বিভক্ত করেন নাই সুতরাং এই বিভক্তি করার ক্ষমতা কোন মানুষের নাই। তাই সারা বাংলাদেশের কোথায় কি হবে জানি না কিন্তু নারায়ণগঞ্জে আগেও কেউ সাম্প্রদায়িকতা সৃষ্টি করতে পারে নাই আর যতোদিন বেচে আছি ততোদিন এটা হতেও দেবো না। আমার বিশ্বাস, যতোদিন জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিনা রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকবেন ততোদিন ওইসব কুচক্রী মহলের মনের ইচ্ছা পূরণ হবে না। ওইসব কুচক্রী, অসভ্য যারা সাম্প্রদায়িক সম্পর্ক নষ্ট করতে চায় তাদের সকল ষড়যন্ত্রকে আমরা মোকাবেলা করবো।

তিনি আরো বলেন, আজকে খুশির দিন। আজকে হিন্দ্র সম্প্রদায়ের অত্যন্ত বড় একটি দিন। আজকে আমি সবাইকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই। সাথে সাথে এই মিছিলের কারণে হয়তো অনেকের কষ্ট হবে তাই যাদের সাময়িক সময়ের জন্য কষ্ট হবে তাদের কাছে আমি ক্ষমা প্রার্থনা করছি।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার মো. আনিসুর রহমান বিপিএম, পিপিএম (বার), মহানগর আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ও জেলা ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি চন্দন শীল, মহানগর আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি রবিউল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহা, নাসিক ১৪ নং ওয়াড কাউন্সিলর শফি উদ্দিন প্রধান, পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি শংকর সাহা, জেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি কমান্ডার গোপীনাথ দাস প্রমুখ।