‘ভাঙা কুলা’ মতিকেই বড় প্রয়োজন সেলিম ওসমানের!

আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্কঃ

আলিরটেক ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান মতিউর রহমান ও ইউপি সদস্যদের আবারো সুযোগ দেয়ার আহবান জানিয়ে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ এমপি সেলিম ওসমান বলেছেন, প্রত্যেকটা ওয়ার্ড থেকে দশ জন করে মুরুব্বি ঠিক করবেন। তারা আমাকে বলবেন মেম্বারদের কোন ভুল আছে কি না, আর মেম্বাররা আমাকে বলবেন চেয়ারম্যানদের কোন ভুল আছে কি না ? তিনি বলেন, শয়তানের ভুল হয় না মানুষের ভুল হয়। ভুল এক জিনিষ এবং অপরাধ এক জিনিষ। ভুল হতেই পারে, ভুল শোধরানোর জন্য তাকে আরেকবার সুযোগ দিতে হয়। আপনারা যদি সুযোগ দেন তাহলে এই পরিষদটাকেই আরেকবার দরকার।

শুক্রবার (২৯ জানুয়ারি) বিকেলে শেখ রাসেল কুড়েরপাড় আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আলীরটেক ইউনিয়ন পরিষদ আয়োজিত ইউনিয়নের উন্নয়ন শীর্ষক মতবিনিময় ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সেলিম ওসমান এসব কথা বলেন।

সেলিম ওসমান আরো বলেন, মতিউর রহমানকে চেয়াম্যান হতে হবে এমন কোন কথাও নেই। আপনারা যদি বলেন মতিউর রহমান চেয়ারম্যান হবে, আমি মনে করবো মতিউর রহমান আজকে থেকেই চেয়ারম্যান। মতিউর রহমানকে যদি আপনারা ভাঙা কুলাও বলেন, তাহলে সেলিম ওসমানের আজকে মতিউর রহমানের মতো একটা ভাঙ্গা কুলার বড় প্রয়োজন। যদি আল্লাহ আমাকে হায়াত দেয়, আমার কাছে যে কয়েকটি চাহিদার কথা বলা হয়েছে আমি মতিউর রহমানকে বলব আগামীকালকে যেন সেই কাগজটা আমার ঘরে চলে যায়। তাহলে আমি প্ল্যানিং করতে পারব।

সেলিম ওসমান বলেন,এখন আর মানুষ পয়সা খেয়ে ভোট দেয় না। তারা পয়সা দিয়ে মজা খায় কিন্তু ভোট দেয় না। যখন মানুষ ভীত হয়ে বাড়ি ঘর থেকে বের হওয়ার কথা চিন্তাও করেনি। আমার মনে হয় আমার অঞ্চলের (নারায়ণগঞ্জ-৫ আসন) ভিতরে, সাতটি ইউনিয়ন এবং সকল ওয়ার্ডের মধ্যে সবচেয়ে পবিত্র স্থান আলীর টেক। এখানে মনে হয় পাপির সংখ্যাও কম। কারণ সরকার ঘোষণা অনুযায়ী আলীরটেক ছিল গ্রীণ জোন। আমি যখন এখানকার প্রতিনিধিদের বললাম, তোমরা জনপ্রতিনিধি, জনগণের গোলাম, আল্লাহর রহমতে এলাকার মানুষের ভোটের মাধ্যমে তোমরা জয়ী হয়ে আজকে নেতৃত্ব দিতে এসেছো। হয়তো মতিউর রহমান আসতেন না যদি তার মেম্বাররা তাকে সহযোগিতা না করতেন। তাদের সকলের সহযোগিতার কারণে এখানে আজকে একজনও করোনায় আক্রান্ত হয়নি। আমি বলবো বর্তমান উন্নয়নের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে আবারো মতিউর রহমান এবং এই ইউনিয়নের বর্তমান মেম্বারদের আবারো সুযোগ দেয়া উচিৎ।

আলিরটেক ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান মতিউর রহমান এই ইউনিয়নে প্রায় ২৬ কোটি টাকার সম্পন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড তার বক্তব্যে তুলে ধরেন। তাঁর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বন্দর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এহসান উদ্দিন আহমেদ,কলাগাছিয়া ইউপি চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন প্রধান, মুসাপুর ইউপি চেয়ারম্যান মাকসুদ হোসেন, ধামগড় ইউপি চেয়ারম্যান মাসুম আহম্মেদ প্রমুখ।