সরকারকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায় এমনই একজন মাসুদ কামাল- জাকির শাহ

আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্কঃ

কুতুববাগ দরবার শরীফের পীর জাকির শাহ বলেছেন, কিছু আমলা (অফিসার) আছেন যারা সরকারের সরকারের বিরোধীতা করেন। কিছু সংসদ সদস্য তাদের মধ্যে আছে যারা উপরে উপরে থাকে কিন্তু ভিতরে ভিতরে বিরোধীতা করে, কিছু মন্ত্রীও এমন থাকেন।

এমপি সাহেব (সেলিম ওসমান) কেমন লোক আমি জানি না। সেলিম ওসমান সাহেব দু/একবার আমার সাথে দেখা করছে। তবে আমি বলে গেলাম, মাননীয় সংসদ সদস্য ওসমান সাহেব, আপনি একটু এই মানুষের পাশে দাড়ান। বড়লোকের পাশে তো দাড়াইবেনই, গরীব দু:খী যারা কষ্ট করে, কতো কষ্ট করে এ জায়গাগুলো করছে। এখন এগুলো না বুঝে যারা পাগল হয়ে ভাঙ্গার চেষ্টা করছে সেটি কি আপনারা দেখবেন না। জনগনের পিছনে দাড়ান, জনগনের দু:খ-দুর্দশা দেখেন, এজন্যই তো আপনারা নেতৃত্ব দিতেছেন। যদি না দেখের তাহলে এরা কোথায় যাবে?

পাট মন্ত্রণালয় কর্তৃক বন্দরের আমিন, লেজারার্স, রূপারী ও র‌্যালী এলাকায় বিক্রয়কৃত সম্পত্তিতে বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃক উচ্ছেদের প্রতিবাদে আয়োজিত এক প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

রবিবার (১৫ নভেম্বর) দুপুরে বন্দরের ময়মনসিংহ পট্টি এলাকায় এ প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করেন আমিন, লেজারার্স, রূপালী ও র‌্যালী এলাকার ক্ষতিগ্রস্থ জমির মালিকরা।

এসময় পীর জাকির শাহ বলেন, আজকে যদি আমার নাসিম ওসমান বেঁচে থাকতো, তাহলে আজকে আমাকে এখানে আসতো হতো না। উনি আমার সন্তান ছিলো, দীর্ঘদিন তথা প্রায় ২৫ বছর আমার খেদমত করছে। আজকে মাননীয় সংসদ সদস্য (সেলিম ওসমান), ওনার তো কাজ আপনাদের এ দু:খ-দুর্দশা দেখার, এটা ওনার কর্তব্য। উনার কাছে আপনারা জানাবেন, উনি যেহেতু জনগনের ভোটে এমপি হয়ে আসছেন। উনি তো মানুষের সুখ-দু:খ শোনার জন্যই এমপি হইছেন। মুরব্বী, উনার শোনা লাগবে। আপনারা মেয়র আইভীকে জানাবেন, এ জায়গাগুলোতে মেয়রের আন্ডারেই।

বিআইডব্লিউটিএ এর যুগ্ম পরিচালক মাসুদ কামালকে উদ্দেশ্য করে জাকির শাহ বলেন, যদি কেউ কোনো বাড়িতে ভাড়া থাকে তাহলেও এক থেকে ৩ মাসের সময় দেয়া হয়। কিন্তু এরা সরকার থেকে জমি কিনে মালিক হয়েছে, এদের উপর অত্যাচার করে সাধারণ একটা অফিসার, এটা ভালো কাজ না। এরকম বেহায়া অফিসার সরকারের সব জায়গার মধ্যেই আছে, যেটা ভিতরে ভিতরে সরকারের বিরোধীতা করে, সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করে। সরকারকে ছোট বানাতে চায়, সরকারকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায় এমনই একজন মাসুদ কামাল।

তিনি বলেন, যে কোনো কালো হাত হয়তো আছে এদের উপর, তা নাহলে একজন অফিসারের এতো বড় সাহস। একজন সাধারণ অফিসার জনগনের উপর এমন অত্যাচার করবে তা হতে পারে না। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মা কে জানাবো। উনি দেশের মুরুব্বী। নিশ্চয়ই উনি ব্যবস্থা নিবেন।

কুতুববাগের এ পীর বলেন, আজ আমরা কেন এখানে আসবো? কেন এখানে প্রতিবাদ সভা-সমাবেশ হবে? প্রত্যেকের কেনা জমি, খারিজ-খাজনা সবকিছু ক্লিয়ার, একটা ভুল নাই। ভুল থাকলে আমি ফকির এখানে আজ আসতাম না, শত শত কোটি টাকা দামের সম্পদ হলেও আমি এ মঞ্চে আজ এখানে আসতাম না। আমি আসছি সত্যকে বলার জন্য। আমি আমার মা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার নিকট আপনাদের পক্ষ থেকে বললাম, উনি নিশ্চয় শুনবেন। ব্যবস্থা নিশ্চয়ই নিবেন, উনি সবার শান্তি চায়।

তিনি আরো বলেন, বিআইডব্লিটিএ এর কতিপয় কর্মকর্তা-কর্মচারীরা চাঁদা দাবী করে, ঘুষ দাবী করে। জনাব মাসুদ কামাল, জাহাঙ্গীর সহ অনেকেই অনেককে গোপনে ডাকে, ঘুষ দাবী করে। আমি বলে দিয়েছি কাউকে কোনো টাকা দিবো না।