বন্দর প্রতিনিধি(আজকের নারায়নগঞ্জ): নারায়নগঞ্জ বন্দরের মদনপুর ইউনিয়ন এর ফুলহর এলাকার মৃত হাজী শরাফত আলী মেম্বারের সম্পত্তি যা পাঁচটি দাগে মোট সাড়ে ৭৪.৫০ শতাংশ ফসলি জমি জোরর্পূবক দখল করে ইটভাটা স্থাপন করার অভিযোগ উঠেছে কথিত যুবলীগের নামধারী নেতা অহিদুজ্জামান অহিদ গংদের বিরুদ্ধে ।
তথ্যসূত্রে জানা যায়, মদনপুর এলাকার মৃত শরাফত আলী মেম্বার ফুলহর মৌজায় ৭৪.৫০ ফসলি জমি রেখে যান। উক্ত জমি সমূহ শরাফত আলী মেম্বার এর পুত্র নুরুল ইসলাম প্রায় ১০ বছর র্পূবে আহসানউল্লাহ নামের এক ব্যাক্তিকে ভাড়া প্রদান করেন। উক্ত জমির ভাড়ার চুক্তির মেয়াদকাল প্রায় ৪ বছর আগেই শেষ হয়। পরর্বতীতে উক্ত ভূমি সমূহ প্রকৃত মালিক পক্ষের সাথে আলোচনা কিংবা চুক্তি না করেই আহসান উল্লাহ‘র কাছ থেকে নিয়ে অহিদ, আমজাদ, আইয়ুব আলী মেম্বার গংরা নিয়ে বলে জানা যায়৷

এছাড়াও উক্ত ভুমির প্রকৃত মালিকদের বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি ও হুমকি প্রর্দশন করে আসছে ভূমিদস্যু অহিদ গংরা। ভূমিদস্যুদের হাত থেকে পৈত্রিক সম্পত্তি ফিরে পেতে মৃত শরাফত আলী মেম্বার এর পুত্র আমির হোসেন সরকারি বিভিন্ন দফতরে অহিদ গংদের বিরুদ্ধে লিখিত আবেদন করেন।
অপরদিকে সরকারী ভাবে ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) আইন ২০১৩ এর (চ) এর ৫নং এ প্রনীত অধ্যাদশে এ উল্লেখ্য আছে যে রেলপথ, হাসপাতাল, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এর এক কিলোমিটার এর মধ্যে কোন ইটভাটা স্থাপন করা যাবে না। অথচ অহিদের ইটভাটার মাত্র ২০০ গজ দূরেই ফুলহর প্রাথমিক বিদ্যালয়টি। এ ঘটনায় প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছে এলাকাবাসী।