আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্কঃ ‘আমি সোনারগাঁ পৌরবাসীর উদ্দেশ্যে ৬৪টি মসজিদে দাওয়াতপত্র পাঠাইছি আগামী ৬ নভেম্বর বাদ আছর সবাই আসবে। আমরা মতবিনিময় করবো আমাদের প্রার্থী কে হবে। এর আগে যে যোগ্য প্রার্থী আছে তার কাছে জানতে চাইবো তিনি মেয়র নির্বাচন হলে আমাদের পৌরবাসীর উন্নয়নে কি কি সাপোর্ট দিবেন,কিভাবে উন্নয়ন করবো ? পরে সবার মতামত নিয়ে আমরা সিদ্ধান্ত নিবো কাকে মেয়র প্রার্থী করবো।’

এমনি চিন্তাভাবনায় সোনারগাঁ পৌর নির্বাচন নিয়ে সিআইপি শিল্পপতি গোয়ালদির ফেরদৌস ভূঁইয়া মামুন বলেন, আগে আমি বলছিলাম ওয়ান ভোট ওয়ান প্রার্থী আর এখন আমরা বলবো ২৭ হাজার ভোটের একজন প্রার্থী। এই একজন প্রার্থীকেই নিয়েই সিদ্ধান্ত নেবো এবং সুন্দর একটি পৌরসভা গড়ার লক্ষ্যে সিদ্ধান্ত নেবো।তিনি আরো বলেন,সে উনি অন্য ইউনিয়ন থেকে এসে প্রার্থী হওয়ার জন্যে একজন ভোটার হইছে। পৌরবাসী ২৭ হাজার ভোটার সকলেই জানেন। স্থানীয় আমাদের ক্যান্ডিডেট থাকতে আমরা প্রবাসীকে মেয়র বানাবো না স্থানীয়কে বানাবো তা পৌরবাসী সিদ্ধান্ত নেবে।

সম্প্রতি এক ভিডিও বার্তায় শিল্পপতি মামুন বলেন, দুইটি নির্বাচন সাদেক সাহেবকে নিয়া করছি তখন যতরকম পেশীশক্তি চেষ্টা করেছে,আলহামদুলিল্লাহ সাকসেস হয় নাই। সাকসেস হ্ইছে জগনের শক্তিই। আর প্রশাসনতো আছেই। প্রশাসন তাদের নিয়মেই চলছে। আর ২৭ হাজার যদি একত্রিত থাকে তবে কোন পেশী শক্তিই কোন কাজ হবে না।

নৌকা প্রতীক নিয়ে মামুন বলেন, আমরা আশাবাদি, আমরা এ পর্যন্ত যে যোগ্য প্রার্থীকে নিয়ে চিন্তাভাবনা করছি যেটা ৬ তারিখে বসে ফাইনাল করবো। সবার দোয়া, আল্লাহর রহমতে নৌকা সেই প্রার্থীই পাবে। এরপরেও আল্লাহপাক ভাগ্যে না রাখে, তারপরেও আমরা সুন্দর একটা পৌরসভা চাই এবং স্থানীয় লোকের দ্বারা চাই। পরবর্তীতে আমরা সেটা ডিসিশন নেবো সবাই মিলে।

উল্লেখ্য,আগামী ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য সোনারগাঁ পৌরসভা নির্বাচন নিয়ে ইতিমধ্যে ব্যাপক জল্পনা-কল্পনা শুরু হয়েছে। স্থানীয় নাগরিক কমিটির ব্যানারে ইতিমধ্যে স্থানীয় এমপি পত্নী ডালিয়া লিয়াকতকে প্রার্থী হিসাবে ঘোষনা করা হয়েছে। অপরদিকে এরপূর্বে যেই সাদেকেুর রহমানকে নিয়ে নির্বাচনের মাঠে মামুন খেলেছেন সেই সাদেকও ডালিয়া লিয়াকতকে সমর্থন দিয়ে মাঠে লড়ছেন।

কিন্তু মামুন ভূইয়ার বাসভবনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের উপ-কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক ও ঢাকা কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ছগীর আহাম্মেদকে নিয়ে মিটিং করেছেন। এ ছাড়াও অনেক মাইনাস-প্লাসের খেলা চলছে।

এখন আগামী ৬ নভেম্বর মামুন ভূইয়ার বাসভবনে আহবান করা ৬৪ মসজিদের মুসল্লীদের নিয়ে কি সিদ্ধান্ত নেন তা দেখার অপেক্ষায় আছে সোনারগাঁ পৌরবাসী।