আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্কঃ জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম বলেছেন,জাতির পিতার এ বাংলাদেশ, তার যে এ স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়তে কেউই এককভাবে আমরা পারবো না। তবে আমরা যে যেই অবস্থানে আছি সেখান থেকেই কাজ করতে হবে।সেই আমি পুলিশ হই,রাজনীতিবিদ হই কিংবা ব্যবসায়ী হই পেশায় থাকি দেশের জন্যে কাজ করতে হবে,তবেই শুধু ভিয়েতনাম কেন বিশ্বের যেকোন দেশের চেয়ে উন্নত দেশ গড়ে তোলা সম্ভব হবে।

মুজিব বর্ষের মূলমন্ত্র-কমিউনিটি পুলিশিং সর্বত্র শ্লোগানে কমিউনিটি পুলিশিং ডে উদযাপন অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন নারায়নগঞ্জ-২ (আড়াইহাজার)আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু।

তিনি জেলার পুলিশ সদস্যদের প্রতি উদ্দেশ্য করে বলেন, নারায়নগঞ্জে কাজ করা গর্বের ব্যাপার। এখানে ৬৪ জেলার লোক বসবাস করে। এখানে কাজ করার সুবিধা বেশী। এখানে যারা কাজ করে যায় তারা সারাদেশের যেকোন থানায় কাজ করতে পারবো।

তাই আমরা পরিবর্তন চাই,আমরা কাজের পরিবর্তন চাই,ব্যবহারে পরিবর্তন চাই। আমি বলেছিলাম কোন থানায় দালাল থাকবে না,সোর্স থাকবে না।

শনিবার(৩১ অক্টোবর) সকালে নারায়নগঞ্জ জেলা পুলিশ লাইনস মিলনায়তনে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে জেলা পুলিশ ও কমিউনিটি পুলিশিং ফোরাম,নারায়নগঞ্জ।

আমি যখন ১০ মাস আগে যোগদান করি তখন দেখলাম জেলায় প্রতি বর্গকিলোমিটারে ৪৫ থেকে ৫০ জন লোক আছেন যারা কয়েদি অর্থাৎ গ্রেফতারী পরোয়ানা নিয়ে আছেন। আমার কাছে মনে হয়েছি যেখানে প্রতি বর্গকিলোমিটারে ৫০ গ্রেফতারী পরোয়ানা নিয়ে ঘুরে বেড়ায় সেখানে আইন-শৃঙ্খলা স্বাভাবিক আছে সেটা বলতে পারি না। তাই বিগত ১০ মাসে আপনাদের সহযোগিতায় ১৪ হাজার গ্রেফতারী পরোয়ানা তামিল করা হয়েছে। ফলে প্রতি বর্গকিলোমিটারে তা ২০ জনে নামিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছি। আশা করি আপনারা সহযোগিতা করলে আগামী ১০ মাসে নারায়নগঞ্জের বর্গকিলোমিটারে কোন অপরাধী খুঁজে পাওয়া যাবে না।

জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলমের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন বিশেষ অতিথি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন,নারায়নগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স সভাপতি খালেদ হায়দার কাজল,জেলা কমিউনিটি পুলিশিং সমন্বয় কমিটির সভাপতি ডা. শাহওনেয়াজ,সাধারন সম্পাদক মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজামসহ পুলিশের উর্বধতন কর্মকর্তাগণ।

অনুষ্ঠানে কেককাটা ও বেলুন উড়ানো অনুষ্ঠানে অংশ নেন অতিথিবৃন্দ।