অসাম্প্রদায়িক নজরুলকে সাম্প্রদায়িক বানানোর প্রচেষ্টা রুখতে হবে

– শেখ সাদী খান

বাংলাদেশের অন্তত দুটি সংগঠন সাম্প্রদায়িক নজরুলের চর্চা করছে বলে আমাদের প্রাথমিক গবেষণায় বেরিয়ে এসেছে। দুটি সংগঠনই চালাচ্ছে একাত্তরের বিতর্কিত কয়েকটি পরিবারের সদস্যরা।

এদের একটি মগবাজারে শিয়া উপাসনালয়ের সন্নিকটে। সেখানে কোন সংখ্যালঘু ছাত্র-ছাত্রী নেয়া হয় না। নেই কোন সংখ্যালঘু শিক্ষক। নামে একাডেমি হলেও সেখানে অপ্রাতিষ্ঠানিক কর্মকাণ্ডই বেশি চলছে। ফেসবুক টেকনোলজির সহায়তায় লাইভ কার্যক্রমকে টিভি মাধ্যম নামে অভিহিত করা হচ্ছে। সেই একাডেমির সাথে সম্পৃক্ত লোকজনের ভাষা প্রচণ্ড সাম্প্রদায়িকতাদুষ্ট। সাম্প্রতিক নিরাপদ সড়ক কর্মসূচির সময়ও এদেরকে অতি উৎসাহী মনে হয়েছে।

একাডেমির প্রধান মিন্টু রহমান আগাগোড়ায় একজন হিন্দু-বিদ্বেষী, রবীন্দ্র-নিন্দুক এবং কপট লোক। এই লোকের স্ট্যাটাস আগ্রাসী, বক্তৃতা অপ্রীতিকর এবং গান শ্রুতির অযোগ্য। তিনি এবং তার সাঙ্গ-পাঙ্গরা দিন রাত হিন্দু-বিদ্বেষী আলাপ-আলোচনায় মশগুল। নজরুলের যেসব গানে হিন্দু-মিথ আছে সেগুলোকে একাডেমিতে এখন শিক্ষা দেয়া হয় না বললেই চলে। এদের অনজরুলীয় কর্মকাণ্ড প্রতিহত করা দরকার।

[লেখকঃ সংস্কৃতিকর্মী]