শুক্কুর মাহমুদের বিশৃঙ্খল অনুষ্ঠানে শৃঙ্খলা ফেরালেন শামীম ওসমান

নগর সংবাদ(আজকের নারায়নগঞ্জ):  চরম বিশৃঙ্খলার মধ্য দিয়ে শেষ হলো কেন্দ্রীয় সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ সমর্থিত জেলা শ্রমিকলীগের শোক দিবসের অনুষ্ঠান। শনিবার (১৮ আগস্ট) বেলা সাড়ে ১২টারশহরের ডিআইটির করিমী মার্কেটে  অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে  মিলাদের খিচুড়ি নিয়ে তুলকালাম ঘটনা ঘটেছে।

তবে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি নারায়নগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান অনুষ্ঠানস্থলে এসে পৌছালে শৃঙ্খলা ফিরে আসে।

উক্ত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন জাতীয় শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি আলহাজ্ব শুক্কুর মাহমুদ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, শহরের ডিআইটির করিমী মার্কেটে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে জেলা শ্রমিকলীগের আলোচনা সভা ও মিলাদের ব্যবস্থা করা হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ এ কে এম শামীম ওসমানের উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও যানজটের কারণে যথাসময়ে   উপস্থিত থাকতে পারেন নি।

এ অবস্থায় সভার সভাপতি জাতীয় শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি আলহাজ্ব শুক্কুর মাহমুদ তার সমাপনী বক্তব্য রাখেন। শুক্কুর মাহমুদের বক্তব্য শেষে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের শহীদ সদস্যদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়।

দোয়া শেষে নেওয়াজ বিতরণ শুরু করা হলে ঘটে বিপত্তি। খোলা জায়গায় কোন শৃঙ্খলা ছাড়াই নেওয়াজ বিতরণ শুরু করা হলে সবাই খিচুড়ির প্যাকেট নিয়ে কাড়াকাড়ি শুরু করে দেয়। এ সময় ধাক্কাধাক্কি করে যে যার মতো খিচুড়ির প্যাকেট নেয়া শুরু করলে হট্টগোলের সৃষ্টি হয়। চেয়ার ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে বিশৃঙ্খল অবস্থা তৈরি হলে এমন অবস্থা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয়নি শ্রমিকলীগের নেতাকর্মীদের। এমন বিশৃঙ্খল অবস্থা দেখে সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করে চলে যান। এরপর নেওয়াজ বিতরণ বন্ধ করে দেয়া হয়।

এর কিছুক্ষন পর অনুষ্ঠানস্থলে এসে পৌছান প্রধান অতিথি নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ এ কে এম শামীম ওসমান। তিনি এসে নেওয়াজ বিতরণ করলে আর কোন বিশৃঙ্খলা দেখা যায়নি।

উক্ত অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, জেলা শ্রমিকলীগের সহ সভাপতি রফিকুল ইসলাম, এস এম মঞ্জুর আহমেদ, গোলাম মোস্তফা মাষ্টার, সাধারণ সম্পাদক মাঈনুদ্দিন আহমেদ বাবুল, মহানগর শ্রমিকলীগের সভাপতি কাজিমউদ্দিন আহমেদ কাজিম, সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক কাউন্সিলর কামরুল হাসান মুন্না প্রমুখ।