ওসি-চেয়ারম্যানের গা ঘেঁষেই দাড়িয়েছিল ওরা !

ফতুল্লা(আজকের নারায়নগঞ্জ): ফতুল্লা মডেল থানার ওসি আসলাম হোসেন যখন ব্রিফ করছিলেন স্বাস্থ্যবিধি মেনেই আমাদের সবকিছু করতে হবে। ঠিক তখনি তারপাশে মাস্কবিহীন অবস্থায় গা ঘেষেই দাড়িয়েছিলেন দায়িত্বশীল ব্যাক্তিগন। এ ছাড়াও হিন্দু সম্প্রদায়ের পূজো উদযাপন কেন্দ্রীয় পরিষদের তরফ থেকেও যে ২৬ নির্দেশনা পালনের তাগিদ দেয়া হয়েছে তাতেও স্বাস্থ্যবিধি মানতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে। অথচ হিন্দু সম্প্রদায়ের স্থানীয় শীর্ষ নেতাদের মাঝে সেই নমুনা লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। এ নিয়ে ব্যাপক দুশ্চিন্তার কারন হয়ে দাড়িয়েছে।

মংগলবার (২০ অক্টোবর) সকালে পাগলার পাগলনাথ মন্দির ও পাগলা জেলেপাড়া শ্রী শ্রী ব্রক্ষ্মচারী পুজা মন্ডপ পরিদর্শন কালে  এ চিত্র দেখা গেছে।

সম্প্রতি করোনামুক্ত হওয়া কুতুবপুর ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুল আলম সেন্টুও উপস্থিত ছিলেন।  ছবিতে দেখা ১৭ জনের মাঝে মাত্র ৩/৪জনের মুখে মাস্ক লাগানো ছিল। ফলে স্বাস্থ্যবিধির ব্যাপারে মুখে কথা বললেও কার্যক্রমে তেমন বাস্তবায়নে কোন লক্ষন কারো মাঝেই ছিল না বা নেই।

এ সময় ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: আসলাম হোসেন বলেছেন, করোনাকে অবহেলা করা মানেই নিশ্চিত মৃত্যু ডেকে আনা। করোনা সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে সরকারি যে নির্দেশনা রয়েছে সে মোতাবেক স্বাস্থ্য বিধি মেনেই আমাদের সবকিছু করতে হবে।আসন্ন দূর্গাপূজা যাতে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকেরা শান্তিপুর্নভাবে করতে পারে সেদিকে আলোকপাত করে পাগলনাথ মন্দিরের সকল নেতৃবৃন্দদের উদ্দেশ্যে তিনি এ দিকনির্দেশনা মুলক বক্তব্য দেন।

তিনি আরো বলেন, সনাতন ধর্মালম্বীদের বড় উৎসব হচ্ছে দূর্গাপূজা। পুজা মন্ডপে যে সব পুজারীরা আসবে তাদের মুখে মাস্ক আছে কিনা সেটাও লক্ষ্য রাখার পাশাপাশি সামাজিক ও শারীরিক দুরত্ব অবশ্যই বজায় রাখতে হবে। ফতুল্লা থানাধীন প্রত্যেকটি পুজা মন্ডবে পুজারীরা যেনো শান্তিপুর্ন ভাবে পুজা উদযাপন করতে পারে সে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।

কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মনিরুল আলম সেন্টু বলেন, ধর্মীয় উৎসবগুলো সবসময়ই একে অপরের মাঝে ভ্রাতৃত্ব, সম্প্রীতি ও ভালবাসার বন্ধন সৃষ্টি করে।তাই সকল ভেদাভেদ ভুলে শান্তি ও কল্যানের পথে চলতে হবে। তিনিও সবাইকে সরকার নির্দেশিত স্বাস্থ্য বিধি মেনে পুজো মন্ডবে আসার আহবান জানান। এসময় উপস্থিত ছিলেন পাগলা বাজার ব্যবসায়ী বহুমুখী সমবায় সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর আলম, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় পুজা উদযাপন কমিটির সভাপতি শিবু দাস, সাধারণ সম্পাদক ডা.অনিল চন্দ্র দাস, পাগলনাথ মন্দিরের সেবায়েত শিবু দাস মোহন্ত, পাগলা জেলে পাড়া শ্রী শ্রী লোকনাথ ব্রক্ষ্মচারী পুজা মন্ডবের সভাপতি মনোরঞ্জন দাস, সাধারণ সম্পাদক রামগোপাল চন্দ্র দাস, সাংগঠনিক সম্পাদক দুলাল চন্দ্র রাজবংশী, কোষাধ্যক্ষ শান্তি চন্দ্র দাস সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।