সংসার না করলেও সুন্দর পরিবার ছিল বাজপেয়ীর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক(আজকের নারায়নগঞ্জ):  সদ্যপ্রয়াত ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ী অবিবাহিত ছিলেন। তবে সংসার না করলেও সুন্দর পরিবার ছিল বাজপেয়ীর। বিয়ে না করলেও তার একটি কন্যাসন্তান রয়েছে। তার নাম নমিতা ভট্টাচার্য। এই নমিতা ছিলেন বাজপেয়ীর কলেজের বন্ধু রাজকুমারী কউলের কন্যা।

নমিতা বড় হয়ে বিয়ে করেন রঞ্জন ভট্টাচার্যকে। তাদের এক কন্যাও রয়েছে, নাম নীহারিকা। কউল পরিবার ও বাজপেয়ীর পরিবারের সম্পর্ক বহুযুগের। রাজকুমারী ও অটলজী রানি লক্ষ্মী বাঈ কলেজ থেকে বন্ধু ছিলেন। রাজকুমারীর স্বামী ব্রিজ নারায়ণ কউলের প্রয়াণের পর বাজপেয়ী তার পরিবারের পাশে থেকে সাহায্য করেছেন। যাইহোক, বাজপেয়ীর কন্যা নমিতা বা গুনু নামে পরিচিত৷ স্পটলাইট থেকে দূরে থাকার কারণে অনেকের কাছেই তার পরিচয় স্পষ্ট নয়৷ বাবা এবং স্বামী (রঞ্জন ভট্টাচার্য) রাজনীতি, ভোটের প্রচার কার্য ব্যস্ত থাকলেও তিনি কাজ করে গেছেন প্রাইমারি স্কুল টিচার হিসেবে৷

শোনা যায়, বাজপেয়ীকে বিয়ে প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে তিনি হেসে জবাব দিতেন, ব্যস্ততার কারণে সময় পাননি৷ ঘনিষ্ঠদের মতে রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সঙ্ঘের আদর্শে ব্রতী হওয়ায় তিনি বিয়ে না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন৷ তবে গুঞ্জন ছিল, রাজকুমারী কউলের সঙ্গেই নাকি বাজপেয়ীর গভীর সম্পর্ক ছিল, যদিও এই বিষয়ে কখনওই কেউ প্রকাশ্যে কিছু বলেননি৷

প্রসঙ্গত, বাজপেয়ী সর্বপ্রথম ১৯৯৬ সালে প্রধানমন্ত্রী হন। তারপরে ফের ১৯৯৮-১৯৯৯ সালে পরপর দুবার প্রধানমন্ত্রিত্ব করেন। ২০০৯ সালে প্রত্যক্ষ রাজনীতি থেকে শারীরিক কারণে বাজপেয়ী অবসর নেন।

উল্লেখ্য, ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিজেপি নেতা অটল বিহারী বাজপেয়ী গত বৃহস্পতিবার শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯৩ বছর। দীর্ঘদিন ধরেই বার্ধক্যজনিত অসুখে ভুগছিলেন অটল বিহারী বাজপেয়ী। ৯ সপ্তাহ ধরে এইমস-এ চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি।

সূত্র: ওয়ানইন্ডিয়া