১০০ কোটি টাকায় না‘গঞ্জে আধুনিক সুইপার কলোনী হচ্ছে- নাসিক মেয়র

আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্কঃ  পেশ করা হয়েছে নারায়নগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ২০২০-২০২১ সনের বার্ষিক বাজেট। গতবারের তুলনায় শত কোটি কমিয়ে ৭৫৫ কোটি টাকার বাজেটে সবচেয়ে বেশি বরাদ্দ রাস্তা-ড্রেন-গভীর নলকূপ স্থাপন খাতে। তবে বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় ১১৪ কোটি ৩৫ লাখ টাকা ব্যায়ে হচ্ছে  আধুনিক সুইপার কলোনি।

মঙ্গলবার(১৩ অক্টোবর) সকালে নারায়নগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ৯ম বাজেট পেশকালে তিনি তথ্য জানান।

করোনার কারনে স্বাস্থ্যবিধি মানতে গিয়ে নগরীর ২ নং রেলগেট এলাকায় অবস্থিত আলী আহম্মদ চুনকা নগর মিলনায়তনে এ বাজেট ঘোষণার সীমিত আয়োজন করা হয়। সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর ও সাংবাদিকরা বাজেট অধিবেশনে অংশ নেন।

পরিচ্ছন্ন কর্মী যারা সারাদিনই শহরকে পরিস্কার রাখে,তাদের সুন্দর জীবনযাপনের জন্যে আধুনিক সুইপার কলোনি প্রকল্পের কথা উল্লেখ করে মেয়র আইভি বলেন,তাদেরকে ন্যূনতম বাসস্থান, শিক্ষা, স্যানিটেশন ও সুপেয় পানি  সরবরাহ করা সিটি করপোরেশনের দায়িত্ব। এ দায়িত্ববোধ থেকে মানবিক দিক বিবেচনা করে সরকারি সহযোগিতা ও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের যৌথ অর্থায়নে ৫৪৯টি পরিবারের জন্য ১১৪ কোটি ৩৫ লাখ টাকা ব্যয়ে ৫৪৯টি ফ্লাট নির্মাণ কাজ চলমান আছে।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নিজেস্ব ভূমিতে ৪টি স্থানে ৬০০ পরিবারের প্রায় ২৭৬০ হন হরিজন সম্প্রদায়ের লোক বসবাস করে। এদের মধ্যে ১০৯৮ হন সুইপার নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্ন কাজে নিযোজিত। কিছু সেবক নগরীর অন্যান্য অফিস, আদালত, গার্মেন্টস ফ্যাক্টরী ও ব্যক্তিগত ভবনে পরিচ্ছন্ন কাজে নিয়োজিত।

নাসিকের ৭৫৫ কোটি টাকার বার্ষিক বাজেটে এর মধ্যে সুইপারদের জন্য আধুনিক সুইপার কলোনী ছাড়াও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নির্মানাধীন বহুতল ভবনে নারায়ণগঞ্জ ইতিহাস সংরক্ষণে যাদুঘর তৈরী করা হবে। ওয়াসা এখন সিটি করপোরেশনের হাতে। শীতলক্ষার পানি শোধন করে সরবরাহ করতে চারটি ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট করার জন্য সমীক্ষা করা হচ্ছে।

মেয়র বলেন, আমাকে দুই বছর সময় দিতে হবে ওয়াসার জঞ্জাল মেরামত করতে। ওয়াসার পাইপগুলি ছিদ্রে জর্জরিত। ডিপটিউবয়েলের ফরমের মুল্য কমানো হয়েছে। টিউবওয়েল স্থাপনের ফি কমানো হবে। কিন্তু পানির বিল দেয়ার আহ্বান জানান।

বার্থ, ডেথ সার্টিফিকেট, ট্রেড লাইসেন্স অনলাইনের মাধ্যমে করার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। বিসিক খাল পর্যায়ক্রমে উদ্ধার করবো। সিদ্ধিরগঞ্জের লেকের উপর সাতটি ব্রীজ সাত বীর শ্রেষ্ঠর নামে করা হবে। কদম রসুল ব্রীজের ভূমি একোয়ারের কাজ কয়েক মাসের মধ্যে শেষ হবে।