অবশেষে সব শুন্য

 

কোথায় যেন দেখেছি তোমারে?
ছিলাম নিমগ্ন নিজের মাঝে;
চোখ মেলে দেখি চিনি বোধহয়?
হয়ত হয়েছিল দেখা কোনদিন।
এরপর বহু যুগ গেছে কেটে
অসংখ্য বসন্ত-গৃষ্ম পার করে
শ্রাবন ধারায় ঝরেছ ;
মিশেছ গিয়ে নদী – সমুদ্রে।
মহাসমুদ্রের ঘূর্ণীতে তলিয়েছিলে
পারোনি নিজেকে ভাসিয়ে রাখতে।
আজ এতকাল পর কি মহামন্ত্রে
তুমি মুক্তি পেলে বলো —-
কেন তুমি জাগাতে এলে?
এখন দেখি নিজেকে সবই যে শুন্য ?
গ্রীষ্মের ঘূর্ণী সাথে আমি উঠে গেছি
উর্দ্ধে , আরো উর্দ্ধে,শুন্যে যাবো মিলিয়ে ।