নিরাপদ সড়ক – স্বপ্ন নয়, সত্যি !

দিলীপ গুহঠাকুরতা

ছোট্ট একটি দেশ
মোদের নাম বাংলাদেশ,
ধারণ অধিক জনসংখ্যায় সমস্যার নেই শেষ।
সড়ক পথে চলতে গেলে বিপদ আছে ভারি,
কেউ জানেনা কখন তার জীবন নেবে কাড়ি।

চালক এমন আছেন যাদের বৈধ লাইসেন্স নেই,
তাদের হাতে অনেক প্রাণ ঝরছে নিমেষেই ।
অনভিজ্ঞ,অসতর্ক, কাতর অধিক শ্রমে,
দুর্ঘটনা ঘটে তাদের ছোট্ট একটা ভ্রমে।

মহাজন তো ব্যবসা থেকে করবেন মানি মেকিং,
তাই- চালক দ্রুত চালান গাড়ি, করেন ওভারটেকিং।
বাসে বাসে লেগে থাকে জোর কম্পিটিশন,
গাড়ির চাকায় ডলে পিষে মরছে মানুষ ফি-সন।

নড়বড়ে আর ফিটনেসবিহীন গাড়ি আছে যত,
সড়ক পথে দুর্ঘটনা ঘটায় অবিরত।
অপর্যাপ্ত, সরু, অনেক সড়ক ত্রুটিপূর্ণ,
যানজট আর দুর্ঘটনায় বেহাল তা হয় তূর্ণ।

সড়ক ছেড়ে মোটরসাইকেল যায় যদি ফুটপাথে,
কিংবা হকার পসার সাজায় দোকানিদের সাথে,
ফুটপাথের মানুষ তখন মূল সড়কে হাঁটে,
এই কারণে অহরহ দুর্ঘটনা ঘটে।

দুর্ঘটনার জন্য কেউ একক দায়ী নয়,
যাত্রী, চালক, পথচারীর দায় আছে নিশ্চয়।
চালক যদি ট্র্যাফিক নিয়ম করেন অমান্য,
দুর্ঘটনা ঘটতে পারে তাহারি জন্য।

আন্ডারপাস, ওভারব্রিজ, জেব্রাক্রসিং যেথায়
পথচারীর রাস্তা পারের নিরাপদ উপায়,
সে সব ছেড়ে কেউ যদি চায় রাস্তা হতে পার,
হতে পারেন পঙ্গু কিংবা মরণ হবে তার।
কেউবা আছেন বলতে থাকেন মোবাইল ফোনে কথা,
ভুলে যান সে পার হচ্ছেন ব্যস্ত সড়ক তথা।
সড়ক পথে প্রতিবছর দুর্ঘটনা যত,
তাদের মাঝে পথচারী সত্তর ভাগের মতো।

যে করে হোক আমরা সবাই ‘নিরাপদ সড়ক চাই’,
‘সড়ক পরিবহন আইন’ এখন সংশোধন হচ্ছে তাই।
রাস্তাঘাটে চলতে গেলে মানতে হবে আইন,
নইলে পাবে শাস্তি অথবা দিতে হবে ফাইন।
পার্কিং কিংবা থামা যাবেনা গাড়ি যত্র তত্র,
থাকতে হবে সকল যানে বৈধ কাগজপত্র।

পাঁচ ঘণ্টাধিক গাড়ি চালানো যাবে না একটানা,
মাদক সেবন করে ড্রাইভিং পুরোপুরি মানা।
নিয়ম মেনে মোটরসাইকেল সড়ক পথে চলবে,
চালক আরোহি দু’জনেই মাথায় হেলমেট পড়বে ।
পথচারী চলার লাগি ফুটপাথ থাকবে মুক্ত,
উল্টো পথে চললে গাড়ি – হবেন অভিযুক্ত।
মোবাইল ফোন হাতে নিয়ে চালানো যাবে না গাড়ি,
ট্র্যাফিক আইন মানবে চালক, যাত্রী, পথচারী।
কঠোর হবেন পুলিশ আর তাদের অনুষঙ্গ,
ধমক, তদবির নিস্ফল হবে – করলে আইন ভঙ্গ।

বাস কোম্পানি ফ্রান্সাইজ হবে একে একে সব রুটে,
ওভারটেকিং, প্রতিযোগিতা সবই যাবে টুটে।
মেট্রোরেল, এলিভেটেড হাইওয়ে, বাস র‍্যাপিড ট্রানজিট,
এগুলো সব চালু হলে যানজট হবে ঢিট।

দুর্ঘটনা শূন্য কিংবা হবে তা নগন্য,
নিরপদ সড়ক পেয়ে হবো সবাই ধন্য।