অটোতে কেঁড়ে নেয়া শিশুর জীবনের দাম সোয়া লাখ টাকা !

বন্দর(আজকের নারাযনগঞ্জ):  বন্দরে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত সোনাকান্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১ম শ্রেণী ছাত্র লিমনের জীবনের মূল্য ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা নির্ধারন করেছে শালিস গনরা। সোমবার রাতে বন্দর থানায় বিচার বৈঠকের মাধ্যমে জীবনের মূল্য এই টাকা নির্ধারণ করেন তারা ।

উল্ল্রেখ্য, গত ৩ আগষ্ট রাত ৯টায় বন্দর রুপালী আবাসিক এলাকার দিনমজুর সোহেল মিয়ার ছেলে স্কুল ছাত্র লিমন তার মায়ের সাথে নানার বাড়ীতে বেড়াতে যাওয়ার সময় বেপোরোয়া ভাবে একটি অটো বাইক স্কুল ছাত্রকে চাপা দিলে সে গুরুত্বর আহত হয়।

এলাকাবাসী শিশুটিকে মুমুর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে নিকটস্থ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটিকে মৃত ঘোষনা করেন। এ ঘটনায় উত্তেজিত জনতা ঘাতক অটোচালক মদনগঞ্জ লক্ষারচর এলাকার মাদকসেবী বাদশা মিয়া (৪৫)কে আটক করে বন্দর থানা পুলিশে সোর্পদ করে।

এ ব্যাপারে নিহত স্কুল ছাত্রের নানা বাদী হয়ে বন্দর থানায় সড়ক র্দূঘটনা আইনে মামলা দায়ের করে। পুলিশ ওই মামলায় আটককৃত চালককে রিমান্ডের আবেদন জানিয়ে আদালতে প্রেরণ করে।

এলাকাবাসী জানিয়েছে, ঘাতক অটো চালক বাদশাকে মুক্ত করার জন্য একটি কুচক্রি মহল স্থানীয় কাউন্সিলরকে সাথে নিয়ে নিহতের পরিবারকে ম্যানেজ করার জন্য অর্থের লোভ দেখিয়ে ঘটনাটি মিমাংসার জন্য নানা ভাবে চাপ সৃষ্টি করে।

এক পর্যায়ে সোমবার রাতে ২১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলহাজ্ব হান্নান সরকারসহ কতিপয় অটো স্টান্ডের শ্রমিক নেতাদের নিয়ে বন্দর থানায় দরবার বসে। সে দরবারে নিহত স্কুল ছাত্র লিমনের জীবনের মূল্য ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা নিধারন করা হয়।

তবে এ রির্পোট লেখা পর্যন্ত নিহত স্কুল ছাত্র লিমনের জীবনের মূল্য ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার এখনো বুঝে পায়নি বলে জানা গেছে।