শিরোনাম পাঠকের হাতে

 

(১)
লক্ষ কোটি শুক্রাণু পরাজিত করে পৃথিবীতে এসেছি হেরে যেতে নয় ।

ঘৃণা নয়তো প্রেম
আলোকিত দিন
অথবা
অন্ধকার জয় করে নেবো ।
পরাজয়ের খালি হাতে ফিরবোনা ঘরে ।

আমার আগে একবার মহামতি ‘আলেকজ্যান্ডার’
একবার ঘুরে গেছেন চে’।
গাইতে গাইতে ফিরে গেছেন
খুদিরাম ।

বিজয়ী বীরের বুকে উপচে পড়ে মানুষের প্রেম
কি করে হারাবে আমাকে !

(২)

আমাকে বেপথু করোনা ।
সূঁই সুতোর সখ্যতা বৈরিতায় যে নকশী কাঁথার জন্ম আমি তার নিপুণ সৌন্দর্যের দিব্বি দিয়ে বলছি।
এ দেশ আমার ; আমাদের বাংলাদেশ ।

দোহাই মুক্তি যুদ্ধ , ত্রিশ লক্ষ প্রাণ, ভাষার ।
মাকে নিয়ে দোলনা খেলোনা ।
কোন জাহানেই ক্ষমা নেই ।
তোমাদের লোভের লালায় মাখা হন্তারকের তকমা লাগানো চশমা চোখে রঙ্গিন জীবন আমাকে দিও না ।

যদি পারো দিও যুদ্ধে পাওয়া লাল সবুজের নিখুঁত আঁচল
পরিপাটি টিকসই যা কিছু আমাদের প্রিয় ।

আমাকে বেপথু করোনা
ও পথে হাঁটবো না আমি
রুখে দাঁড়াবো ।

প্রিয় সবুজ, সাক্ষী থাকুক কবিতা আমি যুদ্ধে যাবো
যুদ্ধে যাবো
যুদ্ধে যাবো ।

(৩)
দেশ আমাদের জননী ; তাহাদের ডাইনিং টেবিল।
রাজনিতির কাটা চামচ টুং টাং
মুখরিত উৎসবে।
পাতে-পাতে মুখে-মুখে সুখ দেয়
জনতা বার বি কিউ ।

তেনাদের ধারাবাহিক উৎসবে পুড়ে যাচ্ছি মা, পূড়ে যাচ্ছ তুমি তোমার ছাপ্পান্ন হাজার বর্গ মাইল।

আর কতোটা পোড়ালে হবে কয়লার খনি?
যাহা খুঁড়ে পেয়ে যাবে ক্ষমতার হীরা!