বৃষ্টি-চোখ রাঙ্গানি-কূট কৌশল কিছুই দমাতে পারেনি শিক্ষার্থীদের

আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্কঃ  বৃষ্টি-চোখ রাঙ্গানি-কূট কৌশল কিছুই দমাতে পারেনি আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের। গতকালকের মতো আজও আন্দোলন ছড়িয়ে পড়েছে সারা দেশে। রাজধানীসহ সারাদেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কোমলমতি শিশুরা সকাল থেকেই গুড়িগুড়ি বৃষ্টি উপেক্ষা করে রাজপথে জড়ো হতে থাকে। গণপরিবহনসহ সব গাড়ি ও চালকের লাইসেন্স চেক করার ফলে পরিবহন মালিকরা বন্ধ করে দিয়েছে যান চলাচল। এতে কার্যত স্থবির হয়ে পড়েছে রাজধানী ঢাকা।

সকাল থেকেই গুড়িগুড়ি বৃষ্টি উপেক্ষা রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে উপস্থিত হতে থাকে শিক্ষার্থীরা। সকালে গাড়ি চলাচল করলেও বেলা ১১টার পর তা একেবারে কমে আসে। বেলা ১১টার দিকে শাহবাগ, কাকরাইল, সাইন্সল্যাব, ফার্মগেট, মিরপুর, বাড্ডা, মহাখালী এলাকায় রাজপথে নেমে আসেন শিক্ষার্থীরা। এর আগে আন্দোলন দমাতে আজকের জন্য সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। অন্যদিকে বৃষ্টির বাগড়া তো ছিলই। তবুও দমিয়ে রাখা যায়নি স্কুল-কলেজের আন্দোলনরত এ শিক্ষার্থীদের।


সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে শাহবাগ থেকে জানান, শিক্ষার্থীরা বৃষ্টি উপেক্ষা করে শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেন। তাদের একটি অংশ যানবাহনের ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক করতে থাকে। যাদের লাইসেন্স নেই তাদের গাড়ি আটকে রাখে সড়কের পাশে। এরপর চালকসহ গাড়ি তুলে দিয়েছেন পুলিশের হাতে। এসময় ছাত্ররা স্লোগান দেন, ‘ছাত্র-পুলিশ ভাই ভাই, খুনি গাড়ির জায়গা নাই’,‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’।

তাদের সঙ্গে আলাপকালে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, তারা আর তাদের ভাই বোনের করুণ মৃত্যু দেখতে চায়না। অপরদিকে মহাখালী থেকে ফার্মগেট ও সাতরাস্তা বন্ধ করে বিক্ষোভ করছে শিক্ষার্থীরা। এ ছাড়া, নগরীর সায়েন্স ল্যাবরেটরি মোড়, নিউমার্কেট, ধানমণ্ডি ২৭, উত্তরা, মিরপুর, মিরপুর, বাড্ডা, হাউজ বিল্ডিং, নটরডেম কলেজের রাস্তাসহ নগরীর বেশিরভাগ সড়কের মোড়ে অবস্থান নিয়েছে শিক্ষার্থীরা। এতে যান চলাচলে কিছুটা বিঘ্ন ঘটলেও শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সমর্থন যুগিয়েছেন অনেকেই।

এদিকে গণপরিবহন বন্ধ হয়ে যাওয়ায় যাত্রীরা পড়েছেন চরম দুর্ভোগে। যাত্রীরা এর জন্য পরিবহন মালিকদের দায়ী করেছেন। এদিকে দিনের বেলায় গণপরিবহনের সংখ্যা কমে যাওয়াটা রহস্যজনক মনে হচ্ছে অনেকের কাছে। অনেকে বলছেন, লাইসেন্স না থাকায় গাড়ি বের করছেন না অনেকেই। এমনটা হলে কেবল ঢাকা শহরেই লাইসেন্সবিহীন গাড়ি সংখ্যা লাখ ছাড়াবে বলে জানা গেছে।

পরিবহন সংকটের কারণে নিরুপায় হয়ে অনেককেই হেঁটে গন্তব্যে রওনা দিতে দেখা গেছে। রাজধানীল বাইরেও শিক্ষার্থীদের অহিংস আন্দোলন চলছে। সাভার, গাজীপুর, টঙ্গী, রংপুর, ফেনী, কুমিল্লাসহ বিভিন্ন জেলা থেকে আমাদের প্রতিনিধিরা জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা রাজপথে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করছে। সেখানেও তারা গাড়ির কাগজপত্র চেক করছেন। বিভিন্ন শ্লোগান দিচ্ছেন।

এদিকে আন্দোলনের ঢেউ চট্টগ্রাম, রাজশাহী ও সিলেটেও গিয়ে পৌঁছেছে। আমাদের চট্টগ্রাম প্রতিনিধি জানান, সকাল থেকেই চট্টগ্রাম নগরীর জিইসির মোড়, দুই নাম্বার গেইট এলাকায় জড়ো হতে থাকে শিক্ষার্থীরা। অন্যদিকে নগরীর কাপ্তাই রাস্তার মাথা থেকে চুয়েট সড়কটি বন্ধ করে দেন আন্দোলনকারীরা।