মীম ও করিমের পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর ৪০ লাখ টাকা অনুদান

 আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্ক:  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেছেন বাসচাপায় নিহত শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের শিক্ষার্থী দিয়া আক্তার মীম ও আব্দুল করিমের পরিবার। এ সময় তিনি দুই পরিবারকে সমবেদনা ও ২০ লাখ টাকা করে পারিবারিক সঞ্চয়পত্রের অনুদান দেন।
আজ(বৃহস্পতিবার) দুপুরে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে নিহতের পরিবার দেখা করতে গেলে তিনি তাদের সমাবেদনা জানান।

এ সময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল উপস্থিত ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একাধিক সূত্র এ কথা জানিয়েছে।

এর আগে বেলা ১১টার দিকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে একটি গাড়ি এসে দিয়ার মা রোকসানা বেগম, বাবা জাহাঙ্গীর আলম, বড় বোন রোকেয়া খানম রিয়া ও ছোট ভাই পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী রিয়াদুল ইসলাম আরাফাতকে নিয়ে যায় বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন।
আব্দুল করিম রাজীবের মাসহ অন্যান্য সদস্যরা সেখানে যান।

গেলো রোববার রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে জাবালে নূর পরিবহনের দুই বাসের রেষারেষিতে ঝরে যায় দুই শিক্ষার্থীর প্রাণ। তারা হলেন- শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের শিক্ষার্থী দিয়া খানম মীম ও আব্দুল করিম। দিয়া খানম ওরফে মীম একাদশ শ্রেণিতে ও আব্দুল করিম দ্বাদশ শ্রেণিতে পড়তেন। এরপর তাদের হত্যার বিচার ও নিরাপদ সড়কে ৯ দফা দাবিতে সহপাঠীরা আন্দোলনে নামেন। ধীরে ধীরে এ আন্দোলন পুরো রাজধানীতে ছড়িয়ে পড়ে।

নিহত মীম তার বাবা-মায়ের সঙ্গে মহাখালীর দক্ষিণপাড়ায় থাকতেন। তাদের গ্রামের বাড়ি পিরোজপুরেরর ভাণ্ডারিয়ার বুইনিয়ায়।

নিহত আব্দুল করিম আশকোনায় তার খালাতো ভাই মেহরাজের বাসায় থেকে পড়াশোনা করতেন। তার বাবার নাম নূর ইসলাম। চার ভাইবোনের মধ্যে আব্দুল করিম ছিলেন তৃতীয়। গ্রামের বাড়ি নোয়াখালীর হাতিয়ায়।

নিহত দিয়ার বাবা জাহাঙ্গীর হোসেন সাক্ষাৎকার শেষেবলেছেন, কঠোর শাস্তির কথা , আশা করি কঠোর শাস্তি হবে, প্রধানমন্ত্রী সান্তনা দিয়েছেন, আশ্বাস দিয়েছেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও বলছেন কঠোর শাস্তি হবে। বাবারা তোমরা যারা রাস্তায় কষ্ট করছো তোমরা ঘরে ফিরে যায়’।