চাঁদার দাবিতে সিদ্ধিরগঞ্জে ইয়াছিন ক্যাডারদের গাড়ি ভাংচুর

 

সিদ্ধিরগঞ্জ(আজকের নারায়নগঞ্জ): সিদ্ধিরগঞ্জে চাঁদার দাবিতে লাব্বাইক পরিবহনের ৪টি যাত্রীবাহি বাস ভাঙচুর করার অভিযোগ উঠেছে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদকের ক্যাডাররা।

রোববার বিকেলে ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের সিদ্ধিরগঞ্জের সানারপাড় পিডিকে সিএনজি পাম্প এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছে লাব্বাইক পরিবহনের কর্তৃপক্ষ। বাসগুলো সিদ্ধিরগঞ্জের সানারপাড় থেকে সাভার ইপিজেড রুটে চলাচল করে।

লাব্বাইক পরিবহনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ হাসান জানান, রোববার বিকেল ৩টার দিকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী ইয়াসিনের সহযোগী ইয়াসিন আরাফাত রাসেল ওরফে শেখ রাসেল, শফিকুল ইসলাম, ফয়সাল, পারভেজ, রাজু ও ছোট রাসেলসহ আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মী পরিচয় দানকারী একদল চাঁদাবাজ লাব্বাইক পরিবহন থেকে চাঁদা দাবি করে।

কিন্তু তাদেরকে চাঁদা দিতে অস্বীকর করে লাব্বাইক বাসের শ্রমিকরা। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সানারপাড় পিডিকে পাম্পের সামনে ৪টি বাস ভাঙচুর করে ওই চাঁদাবাজরা। ভাঙচুরকৃত ওই ৪টি বাস হল- ঢাকা মেট্রো ব-১১-০৪৬৫, ঢাকা মেট্রো ব-১৫-৩৭৩৩, ঢাকা মেট্রো ব ১১-৯০৩০, ঢাকা মেট্রো ব-১৫-১৫২৫। চাঁদাবাজরা দাবি করে গাড়ি প্রতি তাদেরকে প্রতিদিন ৫০ টাকা করে চাঁদা দিতে হবে।

অন্যথায় তারা সিদ্ধিরগঞ্জের সানারপাড় থেকে বাস চলতে দিবে না। সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ ইয়াছিনের নির্দেশে তারা এ চাঁদা দাবি করছে বলে উল্লেখ করে লাব্বাইক বাসের শ্রমিকদের কাছে। এ ঘটনায় সন্ধ্যায় লাব্বাইক পরিবহনের পক্ষ থেকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে।

তবে এ ব্যাপারে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী ইয়াসিন বলে, ঘটনাটি মিথ্যা। আমার কোন লোক এ কাজ করে নাই। ওই পরিবহনের বাসগুলো সাইনবোর্ডে মিতালী মার্কেটের সামনে অবৈধভাবে পার্কিং করে রাখে। ওই পরিবহনের বাসগুলোর কারণে আমাদের মিতালী মার্কেটের পণ্য লোড আনলোডসহ যানবাহন চলাচলে বিঘœ ঘটে।

এ কারণে আমি ওই পরিবহনের বাসগুলোকে আমাদের মিতালী মার্কেটের সামনে রাখতে নিষেধ করেছি। যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে তারা সকলেই আওয়ামীলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত এবং তারা মার্কেটেরও দেখাশোনার দায়িত্বে রয়েছে।

আমি মনে করে সামনে নির্বাচন বিধায় জামায়াত বিএনপির দোসররা পরিকল্পিতভাবে ঘটনা ঘটিয়ে সেটার দায় আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের উপর চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছে। আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা চাঁদাবাজির সঙ্গে জড়িত নন বলে তিনি দাবি করেন।

তবে তিনি এ কথাও বলেন, হরতাল মিটিং মিছিলে কত গাড়ি ভাংচুর করেছি সেটা নিয়ে কোনো সাংবাদিকরা জানতে চায়না। তবে একটা গাড়ি ভাংচুর হয়েছে এটা নিয়ে কত সাংবাদিক এ পর্যন্ত ফোন করেছে।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (অপারেশন) আজিজুল হক জানান, বাস ভাঙচুরের ঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনাটির তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষে আইনগত পদক্ষেপ নেয়া হবে।