ট্রাফিকের ভূমিকায় এমপি খোকা

নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁ) আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় পার্টির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব লিয়াকত হোসেন খোকাকে রোববার বিকেলে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মোগরাপাড়া চৌরাস্তা এলাকায় যানজট নিরসনে লাঠি হাতে ট্রাফিকের ভূমিকায় দেখা গেছে। এসময় তার সাথে কয়েকজন পুলিশ সদস্য ও জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলো বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়।

প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষ্যমতে, সোনারগাঁয়ের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা রোববার বিকেল ৪টার দিকে কয়েকজন পুলিশ সদস্য ও জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীদের নিয়ে উপজেলার মোগরাপাড়া চৌরাস্তা বাসস্ট্যান্ডে আসেন। এসময় তিনি নিজেই ট্রাফিক পুলিশের ন্যায় লাঠি হাতে নিয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক ও সোনারগাঁ থানা রোডে দীর্ঘক্ষন ধরে লেগে থাকা যানজট দূর করেন।

এছাড়া তিনি পথচারীদের চলাচলের সুবিধার্থে ফুটপাতের উপর থেকে ছোট ছোট দোকানগুলো নিজে দাঁড়িয়ে থেকে সরিয়ে দেন। তাছাড়া পবিত্র ঈদুল ফিতর পর্যন্ত দিনের বেলায় যাতে মোগরাপাড়া চৌরাস্তা দিয়ে থানা রোডে কোন ভারি যানবাহন চলাচল না করতে পারে সেজন্য সকাল ৮টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত রাস্তার উপরে বাঁশ লাগিয়ে দেয়ার নির্দেশ দেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন- জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য মাসুদুর রহমান মাসুম, মল্লিক মঞ্জুর হোসেন হিরু, কাঁচপুর ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ আহমেদ, জাপা নেতা রমজান আলী, জহিরুল ইসলাম, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক পার্টির নেতা মাইনুল ইসলাম মামুন, উপজেলা ছাত্র সমাজের সভাপতি ফজলুল হক প্রমূখ।

উল্লেখ্য, প্রায় বছর খানেক পূর্বে এমপি লিয়াকত হোসেন খোকাকে একইভাবে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মোগরাপাড়া চৌরাস্তা ও মেঘনা টোলপ্লাজা এলাকায় লাঠি হাতে যানজট নিরসনে ট্রাফিকের ভূমিকায় দেখা গিয়েছিলো। যা তখন সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে উঠে। এসময় সচেতন মহলের অনেকেই- মহাসড়কে যানজট নিরসনের দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যদেরকে এমপি খোকার ন্যায় কঠোরভাবে দায়িত্ব পালনের দাবি জানিয়েছিলেন।