শেখ রাসেলের জন্মদিনে বঙ্গবন্ধু দুঃস্থ কল্যাণ সংস্থার ব্যতিক্রম আয়োজন

ফতুল্লা(আজকের নারায়নগঞ্জ): ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সদস্য ও বঙ্গবন্ধু দুঃস্থ কল্যাণ সংস্থার উপদষ্টো মো.লুৎফর রহমান স্বপন বলেছেন, শেখ রাসেল কে ছিলেন হয়তো এ প্রজন্মের অনেকেই তা জানেনা। মাত্র ৮ বছর বয়সের একটি শিশু ছিল শেখ রাসেল।

কিন্তু সেই পাকিস্তানি প্রেতাত্মাদের দোসর, ঘাতক খুনি চক্র ষড়যন্ত্রকারীরা এই বাংলাদেশকে পিছিয়ে দেওয়ার জন্য বঙ্গবন্ধুর সপরিবারে হত্যা করেছিলো। বাংলাদেশ থেকে বাংলাদেশের অস্তিত্ব বিলীন করে দেওয়ার জন্য, ৭১’র হারের প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য পাকিস্তানি প্রেতাত্মাদের সহযোগী কিছু বিপদগামী সেনাসদস্য বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারকে হত্যা করেছিল।

সেই সময় ৮ বছরের ছোট্ট শিশু রাসেলকেও নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিলো। শুধু বাংলাদেশ থেকে মুজিববাদী আদর্শ, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বিলীন করার জন্য। তার পরিবারকে ধ্বংস করার মাধ্যমে তা করতে চেয়েছিলো। কিন্তু তারা ভুলে গিয়েছিলো বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করলেও বাংলার মাটি থেকে তার অস্তিত্ব কখনো বিলীন হবে না।

শুক্রবার (১৮ অক্টোবর) সকালে ফতুল্লার মুসলিমনগর এতিমখানা বাজারে বঙ্গবন্ধু দুস্থ কল্যাণ সংস্থা আয়োজিত বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ ছেলে শেখ রাসেলের ৫৫তম জন্মবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন,বাংলাদেশকে নিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের যে স্বপ্ন ছিল তার সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করে যাচ্ছেন সফল প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এদেশের মানুষ আজ সুখে শান্তিতে বসবাস করছে। নিন্ম আয়ের দেশ হতে বাংলাদেশ আজ মধ্যম আয়ের দেশে পরিনত হয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন এটাই ছিল। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন পুরনের জন্যই মহান আল্লাহপাক জননেত্রী সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বাচিয়ে রেখেছেন। বংগবন্ধুকে হত্যা করা হলেও তার অস্তিত্ব কে কেউ বিলীন করতে পারেনি,কেউ পারবেও না।বংগবন্ধুর আদরের সন্তান জননেত্রী শেখ হাসিনার স্নেহের ছোট ভাই শহীদ শেখ রাসেল ১৬ কোটি মানুষের অন্তরে চির অম্লান হয়ে থাকবে।

লুৎফর রহমান স্বপন আরও বলেন, শেখ রাসেলের ৫৫ তম জন্মদিন উপলক্ষে বিভিন্ন জায়গায় কেক কেটে আনন্দ উৎসবের মাধ্যমে আয়োজন করা হয়েছে। আমার জানা মতে একজন মৃত ব্যক্তির কাছে আনন্দ উৎসব কিছুই পৌঁছায় না। একজন মৃত ব্যক্তির কাছে পৌঁছায় তার আমল নামা আর সদগা, জারিয়াত,এবং মানুষের দোয়া। শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল, কোরআন খতম করা হয়েছে এবং বিনামূল্যে গরীব দরিদ্র ছেলেদের একটি গামছা, লুঙ্গি, গেঞ্জি প্রদান করে তাদের সুন্নতে খাৎনার আয়োজন করেছে ফতুল্লা বঙ্গবন্ধু দুস্থ কল্যাণ সংস্থা। আজকে আমরা গতানুগতিকের বাহিরে গিয়ে শেখ রাসেলের জন্মদিন পালন করছি।

বঙ্গবন্ধু দুঃস্থ কল্যাণ সংস্থার সভাপতি মো.মাহবুব রহমানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিকসম্পাদক বদিউজ্জামান বদু,এফসিএফ সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম, বাংলাদেশ শ্রমিক লীগ ফতুল্লা থানা শাখার সিনিয়র সহসভাপতি সিরাজউদ্দিন জনি, বিশিষ্ট সাংবাদিক সোনিয়া দেওয়ান প্রীতি, মোকলেছুর রহামান তোতা প্রমুখ।