ভুলতা জেনারেল হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যু,ভাংচুর

রূপগঞ্জ(আজকের নারায়নগঞ্জ): রূপগঞ্জে ভুলতা জেনারেল হাসপাতালে ফাতেমা(২০) নামে এক প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফাতেমা আউখাবো এলাকায় রাকিবের স্ত্রী ও মর্তুজাবাদ এলাকার শফিউল্লাহর মেয়ে।

এ ঘটনায় উত্তেজিত এলাকাবাসী হাসপাতালে হামলা চালিয়ে ওই হাসপাতাল ভাংচুর করে ও পরে ঢাকা সিলেট মহাসড়কে অবরোধ করে হাসপাতালটি বন্ধের দাবি জানায়।  হাসপাতাল ভাংচুরের ঘটনায় ৫ জনকে আটক করেছে ভুলতা ফাঁড়ি পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১৭ অক্টোবর) সকাল ৮টায় উপজেলার ভুলতা জেনারেল হাসপাতালের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ফাতেমার মামা রাশেদ জানান, প্রসব ব্যাথা হলে ফাতেমাকে ভুলতা জেনারেল হাসপাতালে বুধবার(১৬ অক্টোবর) দুপুরে ভর্তি করা হয়। ওই রাতেই অস্ত্র প্রচার করার পর ফাতেমা একটি ছেলে সন্তান প্রসব করে। কিন্তু ভুল অপারেশনের কারণে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হলে ১০ ব্যাগ রক্ত পুশ করা হয়।

এ সময় ডা. সালমা জানায়, রক্ত বন্ধ করা যাচ্ছে না। সারা রাতে ১০ ব্যাগ রক্ত দেয়া হয়েছে। ছেলে সন্তান সুস্থ্য থাকলেও ফাতেমা ভোর ৫টার দিকে মারা যায়।

খবর পেয়ে রোগীর আত্তীয়-স্বজন ও স্থানীয়রা উত্তেজিত হয়ে হাসপাতালে বিক্ষোভ করে ভাংচুর চালায়।

এ সময় হাসপাতালের পরিচালক আব্দুল আউয়াল, মনির হোসেন, মিলন মিয়াসহ চিকিৎসক, নার্সরা পালিয়ে যায়। পরে ভুলতা ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে ভাঙচুরের অভিযোগে ঘটনাস্থল থেকে নুরে আলম আবিদ, ওয়াহিদ, নাসিম, বাপ্পীসহ ৫জনকে আটক করে। এর আগেও এ হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় আরো একাধিক রোগীর মৃত্যু হয়েছে বলে আশপাশের ব্যবসায়ীরা জানায়।

ভুলতা ইউপি চেয়ারম্যান ব্যারিষ্টার আরিফুল হক ভুঁইয়া জানান, ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যুর বিষয়টি খুবই দু:খজনক। এ ধরণের অভিযুক্ত হাসপাতাল বন্ধ করে দেয়া উচিৎ।

তবে ভুলতা জেনারেল হাসপাতালে এমডি মো. মিলন মিয়া জানান, এটি একটি অনাকাঙ্খিত ঘটনা। মানুষ মাত্রেই ভুল হতে পারে। তবে নিহতের পরিবারের সাথে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা চলছে।

রূপগঞ্জ থানার ওসি মাহমুদুল ইসলাম জানান, অভিযোগ পেলে হাসপাতাল কৃর্তপক্ষের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ রাখতে ৫জনকে আটক করা হয়েছে।