মাইরের উপর কোন ওষুধ নাই’ গনপূর্ত প্রকোশলীকে কাজলের হুমকী

আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্ক:গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী জাকির হোসাইনকে হুমকি এবং সরকারি কর্মকর্তাদের সাথে অশোভন আচরণের অভিযোগ উঠেছে নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজলের বিরুদ্ধে ।

গত শুক্রবার (১৩ সেপ্টেম্বর) ও বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) দুই দফায় খালেদ হায়দার খান কাজল হুমকি দিয়েছেন বলে অভিযোগ প্রকৌশলী জাকির হোসাইনের। এ ঘটনায় প্রকৌশলী জাকির হোসাইন জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদকে বিষয়টি অবহিত করেছেন। এ ঘটনায় থানায় সাধারণ ডায়েরির প্রস্তুতিও চলছে বলে জানান জাকির হোসাইন।

জাকির হোসাইন গনমাধ্যমকে জানান, ‘নারায়ণগঞ্জ কলেজের কিছু জমি আমাদের। সেটা নিয়ে ২০১৩ সাল থেকে আদালতে মামলা চলমান। কোর্টের অনুমতি অনুযায়ী সেটার মাপজোক করতে গত শুক্রবার গেলে আমার কর্মকর্তাকে মোবাইলে থ্রেট করছে। আমার এক নারী কর্মকর্তাকে এভাবে বলেছেন যে, মাইরের উপর কোন ওষুধ নাই।’

তিনি আরও বলেন, ‘এদিকে গত বুধবার তিনি আবারও আমাকে মোবাইল ফোনে থ্রেট করেছে। আসলে ঢাকার নয়া পল্টন এলাকার বাসিন্দা এপিএম রফিকুল ইসলামের মালিকানাধীন রফিক কনস্ট্রাকশন কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেডকে আলীগঞ্জ এলাকায় প্রায় ৬৭ লাখ টাকার একটি কাজ পেয়েছিলো। সে কাজটির এগ্রিমেন্ট করার কথা। সেটির জন্য ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মালিককে সশরীরে আসতে হয়। কিন্তু সেই ঠিকাদার আসেনি। আর সেটি পাস করে দেওয়ার জন্য খালেদ হায়দার খান কাজল বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) আমাকে ফোন করেন। তখন আমি ঢাকায় ছিলাম। কাজল সাহেব ফোন করে ওই কাজটি পাস করে দেওয়ার জন্য আমাকে ফোর্স করতে থাকেন। যখন আমি তাকে প্রক্রিয়া সম্পর্কে বলতে যাই তখন তিনি উত্তেজিত হয়ে উঠেন এবং আমাকে যাচ্ছেতাই ভাষায় হুমকি-ধামকি দিতে থাকেন। শুধু তাই নয়, তিনি অফিসেও আসেন এবং অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথেও খারাপ আচরণ করেন। ওই সময় তিনি অফিসে হুমকি দিয়ে বলতে থাকেন, আমাকে আমার ঢাকার বাড়িতে গিয়েই দেখিয়ে দিবে। এরপর জোর করে আমার ঢাকার বাসার ঠিকানা নেন আমার পিএ’র কাছ থেকে। এসব ঘটনায় আমি চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।’

প্রকৌশলী জাকির হোসেন বলেন, ‘আমি ডিসি স্যারের মাধ্যমে এসপি সাহেবকে বিষয়টি জানিয়েছি। ঢাকার এক মিটিং নিয়ে আমি গতকাল সারাদিন এবং আজকে ব্যস্ত ছিলাম। এ বিষয়ে আগামীকাল থানায় সাধারণ ডায়েরি করার পরিকল্পনা রয়েছে।’

এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজলের মুঠোফোনের নম্বরে গণমাধ্যম কর্মীরা অসংখ্যবার ফোন করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নি। যার ফলে তার বক্তব্য সংযুক্ত করা সম্ভব হয়নি।