‘হিল্লা’ দিয়েই টিভি নাটকে অভিনয় শুরু তোতার

বিনোদন ডেস্কঃ  হুজুর,ঠিক জায়গাতেই চোখ ফালাইছেন’ এই সংলাপ আউরে চেয়ারম্যানের চামচার ভূমিকায় জীবনের প্রথম টিভি নাটক সৈয়দ রেজাউর রহমান পরিচালিত ‘হিল্লা’ দিয়েই অভিনয় শুরু তোতার। তারপরে বন্ধু ছড়াকার আদিত্য রুপুর সহায়তায় পরিচালক জামাল রেজার একাধারে ৮টি নাটকে অভিনয় করেছেন সেই ২০১০ সনে। তারপরে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তোতাকে। এ পর্যন্ত দেড় শতাধিক টিভি নাটকে অভিনয় করতে গিয়ে জনপ্রিয় নাট্যকার ও অভিনেতার সাথে কাজ করার সুযোগ হয়েছে।
হ্যা, এতক্ষন যার কথা বলছিলাম সেই তোতা। নারায়নগঞ্জের ফতুল্লা পাগলা এলাকার বাসিন্দা। যার পুরো নাম মোখলেসুর রহমান তোতা। ১৯৭৫ সনের ফেব্রুয়ারী মাসে মুন্সীগঞ্জের হলদিয়াা গ্রামে জন্মগ্রহন করলেও বড় হয়েছেন পাগলা এলাকায়ই। পিতা মোহল আলী খলিফা মারা গেলেও ৯০ বছর বয়স্কা মা সাজেদা বেগম এখনো বেঁেচ আছেন।
দেড় শতাধিক নাটকে অভিনয় করা তোতা সেদিন আহকের নারায়নগঞ্জ অনলাইন পোর্টালের প্রতিবেদকের সাথে অভিনয় জীবনের পেছনের কথা বলতে গিয়ে জানান,পাগলা স্কুলে যখন সিক্স-সেভেনে পড়তেন তখন থেকেই নায়ক ফারুকের অভিনয়ের প্রতি দুর্বলতা সৃষ্টি হয় তার। সে সময় থেকেই আয়নায় ফারুকের মত অভিনয় শেখা শুরু করেন। তখন নিজে নিজে গান লিখে গাইতাম । স্কুলের অনুষ্ঠানেও শিক্ষকেরা ডাকতেন বিভিন্ন অনুষ্ঠানে। নিজে নিজেই অভিনয়ে হাতে খড়ি নিয়ে ২০০৩ কি ২০০৪সনে যোগ দেন বাহাউদ্দিন ভুলু‘র নাট্য সংগঠন ‘জনেজন’ নাট্য সম্প্রদায়ে। অভিনয় শেখার জায়গা মঞ্চে কাজ করে টিভি নাটকের প্রতি আগ্রহ তৈরী হয়। সেখানে অভিনয় করার সময়েই হঠাৎ একদিন ফতুল্লার সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্ব এসএ শামীম তোতাকে জিজ্ঞেস করলেন,টিভি নাটকে অভিনয় করবে কিনা ?
রাজী হওয়ার পরের এক শুক্রবারে এসএ শামীম ভাই তোতাকে নিয়ে যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিষ্টার সৈয়দ রেজাউর রহমানের কাছে। সেদিন সেখানে অনেক কলাকুশলীর সামনে একটি ডায়লগের মাধ্যমে পরীক্ষা নেয়া হলে তোতার ডায়লগ শুনে উপস্থিত সকলেই হেসে উঠলো। তখন তোতার মনে সংশয় জেগে উঠে যে,সে ভাল করলো নাকি কিছুই হয়নি বলে সবাই হেসে উঠলো। কিন্তু না, তাকে নেয়া হলো অভিনয়ের জন্যে।
সেখান থেকেই সামাজিক ডক্যুমেন্টারী ‘হিল্লা’ নাটকে চেয়ারম্যানের চামচার ভূমিকা দিয়েই শুরু তোতার অভিনয় জীবনের দ্বিতীয় পর্ব। এভাবেই শুরু অভিনয় জগতে পথ চলা,,,,,,,, (বাকীটা পরের পর্বে)