নওগাঁর মান্দায় প্রেমের জন্য এক স্কুল ছাত্রীর আত্নহত্যা!

 

মাহবুবুজ্জামান সেতু,নওগাঁ প্রতিনিধি:নওগাঁর মান্দায় প্রেমঘটিত কারনে অভিমান করে এক স্কুল ছাত্রী রুমি (১৪) আত্নহত্যা করেছে বলে জানা গেছে। রোববার(১৮ আগষ্ট) বিকেল ৪ টার দিকে উপজেলার ভারশোঁ ইউ’পির ভারশোঁ মধ্যপাড়া গ্রামের বাবু সরদারের বাড়ীতে এ ঘটনা সেটে। নিহত স্কুল ছাত্রী বাবু সরদারের মেয়ে ।

জানা গেছে,জীবিতকালে রাজশাহী শহরের একটি স্কুলে নবম শ্রেনীতে পড়াশুনা করতো রিুমি । পড়াশুনা করা অবস্থায় রুমি রাজশাহীর মোহনপুর এলাকার একটি ছেলের সাথে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে । প্রেমের সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ হবার পর বিষয়টি পরিবারের লোকজন জানতে পারে এবং মেয়েকে প্রেমের সম্পর্ক ছিন্ন করতে বাধ্য করেন। সে মোতাবেক পরবর্তীতে সে একসময় প্রেমের সম্পর্ক অস্বীকার করে। কিন্তু ওই প্রেমিক পুরুষ রুমির প্রেমে বিভোর।

তাকে ছাড়া তার বেঁচে থাকা যেনো বৃথা। এতো সব বাঁধা পেরিয়ে সে বরাবরই রাজশাহী শহরের যে বাসায় থেকে রুমি পড়াশুনা করতো সে বাসায় গিয়ে ডিস্ট্রার্ব করতো ওই ছেলে। ছেলেটিও রাজশাহীর একটি প্রতিষ্ঠানে পড়াশুনা করতো।এ নিয়ে একাধিকবার উভয় পরিবারের মাঝে মিটিং সিটিং হয়েছে বলেও জানা গেছে। এছাড়াও বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে রুমির পরিবার তাদের প্রেমের সম্পর্কের ব্যাপারে অস্বীকৃতি জানায়।

এতে রাগ, অভিমান আর ঘৃণায় নিজ ঘরের ভেতর ফ্যানের সাথে গলায় দড়ি দিয়ে আত্নহত্যা করে রুমি। ঘটনাটির বাস্তবতা আছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। আবার এমনটি নাও হইতে পারে। তবে তাদের কথায় শতভাগ নিশ্চিত হওয়া গেছে। কেননা, নিহতের চাচা শহিদুল ইসলাম চিতলও সম্প্রতি ভাস্তির প্রেম ঘটিত বিষয় থেকে ভাস্তিকে নিরাপদে রাখতে এবং ওই ছেলের অনিষ্ট থেকে রক্ষাপেতে সাংবাদকর্মীদের সহযোগীতা কামনা করেন।

মান্দা থানার ওসি (তদন্ত) তারেকুর রহমান সরকার মোবাইল ফোনে স্কুলছাত্রী রুমির আত্নহত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করে তিনি বলেন,আত্নহত্যার বিষয়টি সত্য। তবে এটি প্রেম ঘটিত কি না? সে ব্যাপারে নিহতের বাবা কিন্তু কোন লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন নাই। অভিযোগ পেলে তদন্ত স্বাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা হবে। তিনি আরো বলেন, আজ রাতেই হয়তোবা নিহত রুমির লাশ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন-কাফন করা হবে।