চাঁদবাজির মামলায় কারাগারে বক্তাবলীর ভুমিদস্যু বাদল

আজকের নারায়নগঞ্জঃ  ফতুল্লার বক্তাবলী ফেরীঘাটে চাঁদা দাবী ও মারামারির ঘটনায় ভুমিদস্যু বাদলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।  হাজী আব্দুর রহমান বাদী হয়ে গত মঙ্গলবার বাদল(৪৮), মোতালেব(৫২), সোহরাব(৫০), শাহাদাৎ (২৬), সানি(২৩), সাদ্দাম(২৫), বাবু(২৯), জসিম(২৫), আবু বকর(২৫) এর বিরুদ্ধে ফতুল্লা মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করলে একই দিন রাতে বাদলকে পুলিশ গ্রেফতার করে বুধবার আদালতে পাঠিয়েছে। তবে মামলার অপর আসামীদের এখনো গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

মামলার বিবরনে জানা গেছে,  বক্তাবলী ফেরীঘাট সংলগ্ন এলাকায় হাজী আব্দুর রহমানের ৫২ শতাংশ ও তার বন্ধু মহাসিনের ১৩৩ শতাংশ জমি রয়েছে। উভয় জমিই তদারকির দায়িত্ব পালন করে আসছে আব্দুর রহমান। জমিটি কেয়ার টেকারের দায়িত্ব দেয়া হয় নূর হোসেন নামের একজন ব্যাক্তিকে। বাদল ও তার লোকজন কেয়ার টেকার নূর উদ্দিনের কাছে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে আসছিল বেশ কয়েক মাস আগ থেকে।

নূর হোসেন জমির মালিককে বিষয়টি জানালে জমির মালিক বাদলকে চাঁদা দিতে অসম্মতি জানায়। এতে বাদল ক্ষিপ্ত হয়ে জমির মালিক মহাসিনের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা দায়ের করে। শুধু মামলা দিয়েই ক্ষান্ত হয়নি বাদল। চাঁদা না পেয়ে বাদল জমির কেয়ার টেকার নুরুকে বিভিন্ন ধরনের হুমকিসহ জমি দখল করে নেয়ারও চেষ্টা করে আসছিল বলে এজাহারে উল্লেখ।

গত মঙ্গলবার জমির মালিক মহাসিন ও আব্দুল রহমান তাদের জমিতে অবস্থান করে। এসময় বাদল তার লোকজন নিয়ে মহাসিন ও রহমানের কাছে পূর্বের দাবীকৃত ১০ লাখ টাকা চাঁদা দিতে বলে। দাবীকৃত চাঁদা না পেয়ে বাদল ও তার লোকজন মহাসিন ও রহমানের জমির বাউন্ডারী দেয়াল ভাংচূর করে। পরে ঘটনাস্থল থেকে মহিসন, রহমান,রহমানের ভাই রিপন, পবন ও ভগ্নিপতি ফরমান আলী জমি থেকে সামসুল আলমের মোড়ের দিকে আসার সময়,বাদলসহ মামলার অপর আসামীরা তাদের পথ রোধ করে।

এসময় বাদল তার হাতে থাকা চাপাতি দিয়ে রিপনের হাতে কোপ দেয়। এতে মারাত্মক আহত হয় রিপন। অন্য আসামীরা পবন ও ফরমান উল্লাহকে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। মারাত্মক আহত রিপনকে দ্রুত ঢাকা মেডিক্যাল হাসপাতালে নিয়ে যায় তার স্বজনরা।

মঙ্গলবার রাতে ফতুল্লা মডেল থানায় আব্দুর রহমান বাদী হয়ে বাদলকে প্রধান করে একটি চাঁদাদাবী মামলা দায়ের করে। একই দিন রাতে বাদলকে গ্রেফতার করে পুলিশ। বুধবার দুপুরে তাকে জেল হাজাতে পাঠিয়েছে বলে থানা সূত্রে জানা গেছে।
এলাকাবাসী জানায়,বাদল একজন চিহ্নিত ভূমিদস্যু। এর আগেও নিরিীহ মানুষকে চাঁদাবাজীসহ বিভিন্ন মামলা দিয়ে সর্বসান্ত করেছে। জমি দখলের জন্য বাদল একায় ভুমি দস্যু হিসিবে পরিচিতি রয়েছে।

এব্যাপারে ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শাহ মোহাম্মদ মঞ্জুর কাদের পিপিএম বলেন, মারামারি ও চাঁদাদাবীর মামলার ঘটনায় বাদলসহ বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে বাদী মামলা দায়ের করেছে। বাদলকে গ্রেফতারকরে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।