আ‘লীগ নেতাকর্মীরা সংখ্যালঘু ! কুতুবপুরের নেতৃত্বে বিএনপি’

 

আজকের নারায়নগঞ্জঃ কুতুবপুরে এখন নেতৃত্ব দেন বিএনপির লোকজন। কুতুবপুরে সবচেয়ে অবহেলিত ইউনিয়ন,নইলে এখানে নৌকা প্রতীকে কিভাবে মাত্র ৯ হাজার ভোট পায় ?
৯ জুলাই সোমবার সকালে পাগলা সিসিলি কমিউনিটি সেন্টারে আওয়ামীলীগের বর্ধিতসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে জেলা যুবলীগের নেতা জুলহাস মিয়া এ তথ্য তুলে ধরেন।
তিনি সভায় প্রদত্ত বক্তাদের তোষামোদি বক্তব্যের প্রসঙ্গ তুলে ধরে বলেন, অনেকেই বক্তব্যে বলেছেন শামীম ওসমান ৫০ হাজারের বেশী ভোট পেয়ে বিজয়ী হবে। বাস্তব অবস্থাটা তাই নয়।
আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীরা এখন কুতুবপুরে সংখ্যালঘু উল্লেখ করে জুলহাস ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন,শামীম ওসমান যত উন্নয়ন করেছেন,বাংলাদেশের অন্য কোন এমপি এতটা করতে পারেনি। তা হলে শামীম ওসমানের জন্যে ভোট চাইতে হবে কেন ?
তিনি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন,রাজাকারের হাতে যদি মুক্তিযোদ্ধার তালিকা তৈরী করতে দেয়া হয,তবে সেখানেতো রাজাকারের নাম ঢুকবেই। তবে এখনো সময় আছে প্রকৃত ও ত্যাগি নেতা-কর্মীদের কাছে টানুন। যাতে আগামী নির্বাচনে সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে পারে।
বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথি থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাইফউল্লাহ বাদল বলেন,আওয়ামীলীগ অনেক বড় দল এবং পরিবার,এখানে দুঃখ-কষ্ট আর অভিমান থাকবেই। সব দুঃখ-কস্ট আর অভিমান ভুলে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমার-আপনার প্রানপ্রিয় এমপি শামীম ওসমানকে বিপুলভোটে জয়ী করে ঘরে ফিরবো ইনশাল্লাহ।
ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হাজী জসিমউদ্দিনের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি শিকদার গোলাম রসুল,মহানগর আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি বাবু চন্দন শীল,যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম,ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগেরসাধারন সম্পাদক শওকত আলী,সাংগঠনিক সম্পাদক এইচ এম ইসহাক,তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক জসিমউদ্দিন,কৃষিবিষয়ক সম্পাদক ইউনুছ বেপারী,বন ও পরিবেশ সম্পাদক মঞ্জুরুল ইসলাম মঞ্জু,জেলা কৃষকলীগের সভাপতি নাজিমউদ্দিন,ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মানিক চান,সাংগঠনিক সম্পাদক আমিন হোসেন সাগর,ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি গোলাম মোস্তফা,সাধারন সম্পাদক মীর হোসেন মীরু প্রমুখ।