ফুটপাতে হকারীর অধিকার সংবিধান কোথায় দিল- হাফিজকে প্রশ্ন শহিদউল্লাহ‘র

মোঃ শহিদউল্লাহঃ  নারায়ণগন্জে ফুটপাতে হকার বসা নিয়ে আবারো পুরান খেলায় মেতে উঠেছে একটি মহল। গতবারও এমন খেলা খেলতে গিয়ে মেয়র আইভীসহ আমাদের শরীর হতে রক্ত ঝড়ানো হয়েছিল হকার নামধারী কিছু স্বার্থান্বেষী রাজনৈতিক চক্রের মাধ্যমে।এবারো দেখছি একই খেলা। বন্ধুবর কমিউনিস্ট নেতা হাফিজ সাহেবতো হকারদের পূনর্বাসনের বাধ্যবাধকতার জন্য মহান সংবিধানকেই টেনে এনেছেন এই বলে যে সংবিধান পূনর্বাসন ছাড়া কাউকে উচ্ছেদ করার অনুমতি দেয়না। তার কথায় বুঝা যায়,নাসিক,পুলিশ প্রশাসন এক্কেবারে সংবিধানকেই লংঘন করে বসে আছে।
আমরা বিশ্বাসও করতে পারিনা;- পান্ডিত্বের ফুল ফুটিয়ে জনগনের সাংবিধান সম্মত আইনী পথ অর্থাৎ ফুটপাত এ হকার বসে হকারী করার অধিকার সংবিধান কোথায় দিল এবং এমনতর আজগুবি শব্দ তিনি কোন সাংসদের কাছ হতে পাঠ নিলেন? হকার হকারী করবে অন্যান্য আরো বহুবিধ হকারদের মতোই। ফুটপাত দখল করে মানুষের অবাধ চলাচলের অধিকার হরণ করাকে হকার পূনর্বাসন বলে না- এই প্রথম শ্রেনীর পাঠটি হাফিজ সাহেব জানেন না তা’ কিন্তু জনগন বিশ্বাস করবে না। সিটি কর্পোরেশন কেন তাদের পূনর্বাসন করবে তাও আমাদের বোধগম্য নয় এ কারনে যে,এই ক্ষেত্রে পূনর্বাসন শব্দটি যুৎসই নয়। দাবি করা যেতে পারে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ব্যবসা করার জন্য সহজ লভ্য কোন স্হান নির্দিষ্ট করে দেবার;- যার অর্থ পূনর্বাসন নয় একেবারেই।
এমনিতেই নারায়ণগন্জ চাঁদাবাজদের স্বর্গরাজ্য হয়ে গেছে বিধায় আমাদের মাননীয় সাংসদ শামীম সাহেব সংসদে ল্জ্জা পেয়েছেন বলে উল্লেখ করেছেন,- তার উপর হাফিজ সাহেব লজ্জার পরিমানটা আরো বাড়িয়ে দেবেন এমন দৃষ্টিতে কিন্তু আমরা তাকে দেখিনা। তাকে শুধু বলবো হকার নামের এই গোষ্ঠিটির জন্য আমাদের পায়েও কিন্তু গুলি লেগে রক্ত ঝড়েছিল।তাই রক্তের হোলি খেলায় মেতে নিজেকে অন্য খাতায় স্থান দিবেন না।কারন আমরাতো আপনাকে অনেক সন্মান করি, করতেও চাই।

লেখক :

সাবেক সাধারন সম্পাদক,ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগ