’বর্ধিত সভায় নেত্রী বলেননি, আপনারা লাঙ্গলের পক্ষে কাজ করেন’

আজকের নারায়নগঞ্জঃ গনভবনে আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভায় অংশ নেয়া  জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম জানান, গণভবনে যখন আওয়ামীলীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেন নৌকার প্রার্থী যাকে দেয়া হবে তারপক্ষে কাজ করতে হবে। তখন আমরা সমস্বরে পেছন থেকে চিৎকার করে স্লোগান ধরেছি, আমরা নারায়ণগঞ্জে লাঙ্গল চাই না, নৌকার প্রার্থী চাই। এ সময় বর্ধিত সভায় অংশগ্রহণ করা অন্যান্য জেলার আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দও আমাদের এ দাবীকে স্বাগত জানান। বর্ধিত সভায় নেত্রী বলেননি, মহাজোট করবো, লাঙ্গল দিবো, আপনারা লাঙ্গলের পক্ষে কাজ করেন।

বর্ধিত সভায় আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যাঁকে নৌকা দেওয়া হবে, তাঁর পক্ষে কাজ করতে হবে। মনে রাখতে হবে, নৌকা যেন না হারে। একটি সিটে না জিতলে কী হবে,এমন মনোবৃত্তি যেন কারও মধ্যে না থাকে। একটি আসনও হারানো যাবে না, সবাইকে এই মনোবৃত্তি নিয়ে কাজ করতে হবে।

শনিবার (৭ জুলাই) প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময়ের তৃতীয় ও শেষ বর্ধিত সভায় সভানেত্রী শেখ হাসিনার এমন বক্তব্যকে স্বাগত জানিয়ে সকলের সামনেই উল্লাস প্রকাশ করেন নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ। এ সময় নেত্রীর বক্তব্যকে সমর্থন জানিয়ে স্লোগান দেন নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ। এ যেন দীর্ঘদিন ধরে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের মনের কথা। নেত্রীর এমন বক্তব্যে উচ্চস্বরে স্লোগান ধরে সাধুবাদ জানান জেলার নেতৃবৃন্দ। আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ জানান, বর্ধিত সভায় নেত্রীর আজকের বক্তব্যে আমাদের নারায়ণগঞ্জের ৫টি জেলায় নৌকার প্রার্থী দেয়ার দাবীকে আরো অনেক বেশি জোরালো করতে আমাদের উৎসাহিত করেছে।

জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই বলেন, বর্ধিত সভায় নেত্রী আগামী নির্বাচনে কোন ব্যক্তির জন্য নয় নৌকার জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছেন। নেত্রী বলে দিয়েছেন, নৌকা আমাদের মার্কা, নৌকাই দেশ স্বাধীনের সময় নেতৃত্ব দিয়েছেন আপনারা নৌকার পক্ষে সবাইকে ভোট দেয়ার জন্য বলবেন। নেত্রীর এ বক্তব্যকে আমরা সবাই স্বাগত জানিয়েছি।

জেলা আওয়ামীলগের সাধারন সম্পাদক আবু হাসনাত শহীদ মোঃ বাদল বলেছেন,বাংলাদেশের ইতিহাসে কোন প্রধানমন্ত্রী তার দলের তৃণমূল নেতৃবৃন্দের সাথে কোন বর্ধিত সভার আয়োজন করেননি। সভাটি খুবই প্রানবন্ত ছিল। জেলার শীর্ষ নেতাদের চেয়ে তৃনমূল নেতাদের কথাই বেশী শুনেছেন প্রধানমন্ত্রী।

মহানগর আওয়ামীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বলেন, বর্ধিত সভায় নেত্রীর নির্দেশনা ছিলো দলকে ঐক্যবদ্ধ করে আগামী নির্বাচনে নৌকা মার্কার প্রতীককে জয়যুক্ত করতে তৃণমূল পর্যায়ে কাজ করে যাওয়া। এখানে সবাইকে একত্রিত হতে বলেছেন। সাথে আওয়ামীলীগের উন্নয়ন কর্মকান্ড সর্বত্র পৌঁছে দেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। নেত্রী যখন বক্তৃতায় আওয়ামীলীগের প্রার্থীর পক্ষে কাজ করার নির্দেশনা দিচ্ছিলেন তখন আমরা স্লোগান দিয়ে নেত্রীর বক্তব্যকে স্বাগত জানিয়েছি। আমরা নেত্রীর নির্দেশনায় উল্লাস প্রকাশ করেছি।

বর্ধিত সভায় নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবু হাসনাত শহীদ মো.বাদল, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা, সাংগঠনিক সম্পাদক মাহমুদা মালা, জেলা পরিষদের সদস্যবৃন্দ, নাসিক কাউন্সিলরবৃন্দ, জেলার পৌরসভা মেয়র ও ইউনিয়ন চেয়ারম্যানবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।