ফতুল্লার ভোলাইলে কেয়াটেকার সিদ্দিক মিয়ার লাশ উদ্ধার

ফতুল্লা(আজকের নারায়নগঞ্জ): ফতুল্লার সিদ্দিক মিয়া (৫৫) নামের এক ব্যাক্তির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিহত ব্যক্তি জমির মালিক শহিদ মিয়ার চাচা ও বাড়ির কেয়ারটেকার ছিল বলে জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার(১৩ জুন) সন্ধ্যায় ভোলাইল গেউদ্দার বাজার এলাকায় বাড়ির পাশের একটি পরিত্যাক্ত জমি থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহতের পরিবারের দাবী জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের লোকজনদের দ্বারা সিদ্দিক মিয়া খুন হয়ে থাকতে পারে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বাড়ির মালিক শহিদ মিয়াকে ফতুল্লা মডেল থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

ভোলাইল গেউদ্দার বাজার এলাকায় কয়েক বছর আগে ২২ শতাংশ জমি ক্রয় করেছিল শহিদ মিয়া। জমি ক্রয় করার পর স্থানীয় কিছু ব্যক্তি তার কাছে চাঁদা দাবী করেছিল।

এরই মধ্যে কয়েক বছর আগে শহিদের মোট জমি থেকে ৬ শতাংশ জমি মাহবুব নামের এক ব্যক্তি জোর করে দখল করে নেয় । এমনটিই জানিয়েছেন নিহতের পরিবার।

এছাড়াও শহিদের বাড়িতে রাতের বেলা জোরপূর্বক মাদক সেবীরা মাদক সেবন করতো। এ বিষয়ে বাড়ির কেয়ার টেকার সিদ্দিক মিয়া প্রতিবাদ করতো।

এলাকাবাসী আরো জানায়, বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে ভোলাইল বাজারে সিদ্দিক মিয়াকে চায়ের দোকানে চা পান করতে দেখা গেছে। সন্ধ্যায় তার বাড়ির পাশেই একটি পরিত্যাক্ত জমিতে তার লাশ দেখে থানায় সংবাদ দেয় স্থানীয়রা।

এরপরই পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে। নিহত সিদ্দিক মিয়ার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন ছিল বলে জানায় স্থানীয় ব্যক্তি ও পুলিশ। নিহতের স্ত্রী ও এক সন্তান প্রবাসে থাকে। একটি ছেলে সন্তানকে নিয়ে সে ভাতিজার বাড়ি দেখা শোনা করতো।

এব্যাপারে ঘটনাস্থলে যাওয়া ফতুল্লা মডেল থানার পিএসআই আজিজুল হক বলেন, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।
প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে এটি একটি হত্যাকান্ড। তবে ময়না তদন্তের রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর বিস্তারিত বলা যাবে।