‘ট্রলারে,ইজিবাইকে,পায়ে হেটে’ ইউএনও নাহিদা বারিকের সারাদিন

ফতুল্লা(আজকের নারায়নগঞ্জ): কখনো ট্রলারে,কখনো ইজিবাইকে কখনো বাশের সাকো,পায়ে হেটে আবার কখনো মজুরদের মাটি ওড়ায় হাত লাগানো, এভাবেই সারাদিন ছুটে বেড়ালেন ইউএনও নাহিদা বারিক।

মঙ্গলবার(১১জুন) ফতুল্লার নদীবেষ্টিত চরাঞ্চল বক্তাবলী ইউনিয়নের উন্নয়ন প্রকল্প সরজমিনে পরিদর্শন করেন তিনি।

তিনি দিনব্যাপী বক্তাবলীর বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের পরিদর্শন করেন এবং কাজের কোন অনিয়ম হয়েছে কিনা তারও খোঁজ খবর নেন। সকাল হতে বক্তাবলী ইউনিয়নের ৯ টি ওয়ার্ডে গিয়ে বিভিন্ন কাজের খোজখবর নেন।

এদিকে বক্তাবলীতে উন্নয়ন প্রকল্প ছাড়াও বক্তাবলী ইউনিয়ন ভূমি অফিস, বক্তাবলী ইসলামীয়া সিনিয়ার আলিম মডেল মাদ্রাসা, পূর্ব গোপালনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন ও বক্তাবলী ইউনিয়ন পরিষদ পরিদর্শন করেন।

এছাড়াও প্রধানমন্ত্রী দেয়া উপহার হিসাবে বক্তাবলীর ১১টি গৃহহীন পরিবারের জন্য ঘর নির্মাণ করার প্রকল্প পরিদর্শন করেন। তিনি ১১ টি পরিবারের সদস্যদের সাথে আলোচনা করেন এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া গৃহহীনদের প্রতিটি ঘর নির্মান করতে এক লাখ টাকা দেয়া হবে। এতে করে কাউকে একটি টাকা ঘুষ না দেয়ার কথা জানান।

জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার ইউএনও নাহিদা বারিক সকাল হতে বিকেল পর্যন্ত বক্তাবলী ইউনিয়নের উন্নয়ন কাজের পরিদর্শন করেন। বক্তাবলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শওকত আলীকে সাথে নিয়ে সকালে পূর্ব গোপালনগর এলাকার মাটি ভরাট করে নতুন রাস্তা নির্মানে খোঁজখবর নেন। পরে পূর্ব গোপালনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবনের খোঁজখবর নেন। পরে নদী পাড় হয়ে গোপালনগর এলাকার রাস্তার পরিদর্শন করেন। এখান থেকে ছুটে যায় বক্তাবলী ইসলামীয়া সিনিয়ার আলিম মডেল মাদ্রাসার বিভিন্ন সমস্যার খোজখবর নেন এবং মাদ্রাসার উন্নয়নের আশ্বাস দেন।

কানাইনগর ও প্রসন্ননগর গুচ্চগ্রাম এলাকার নতুন রাস্তা ও কালভার্ট নির্মানের খোজখবর নেন এবং শ্রমিকদের সাথে আলোচনা করেন। এমনকি বিভিন্ন এলাকার উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ পরিদর্শন করতে গিয়ে স্থানীয় লোকজনের সাথে আলোচনা করেন এবং স্থানীয় লোকদের সাথে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের সাথে কেমন সম্পর্ক তারও খোজখবর নেন।

উন্নয়ন প্রকল্পের কাজের সাথে অফিসের কাগজপত্রের সামঞ্জস্য তল্লাশিতে ছুটে যান বক্তাবলী ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে। সেখানে গিয়ে পরিষদের রেজিস্ট্রার খাতা দেখেন। রেজিস্ট্রারে কোন অনিয়ম রয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখেন। পরে বক্তাবলী ইউনিয়ন ভূমি অফিস পরিদর্শন করেন। সেখানে গিয়ে রেজিস্ট্রার খাতাগুলো খতিয়ে দেখেন।
ইউএনও নাহিদা বারিক বলেন, বক্তাবলীতে গিয়ে আমি খুব অভিভূত। রাস্তাঘাট ও এলাকার পরিবেশ দেখে খুব ভাল লেগেছে। যত গুলো প্রকল্পের কাজ পরিদর্শন করা হয়েছে এতে করে স্থানীয় চেয়ারম্যানের দক্ষতার প্রমাণ পাওয়া গেছে। বর্তমান সরকার সারা দেশে যেভাবে উন্নয়ন করছে তা মডেল হিসাবে পরিণত হয়েছে। আর সারা দেশের ন্যায় নারায়ণগঞ্জেও ব্যাপক উন্নয়ন হচ্ছে। সরকারের দেয়া প্রকল্পের কাজ গুলো সঠিক ভাবে পরিচালিত হউক সেই প্রত্যাশা করছি।