বেশ পাল্টে পালানোর সময় গ্রেফতার ধর্ষক সানি ,পুলিশের ইজ্জত রক্ষা

আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্ক: অবশেষে ইজ্জত রক্ষা নারায়নগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশের। থানার এসআই সাইফুলের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করেছিল ধর্ষিতা তরুনী তা থেকে কিছুটাও হলে রেহাই পাওয়া গেলে।

চট্টগ্রাম থেকে প্রেমিকাকে ডেকে এনে ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্তকারী রবিউল হাসান সানিকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশ। নিজের বেশ পাল্টে পালানোর সময় মঙ্গলবার (১১ জুন) দুপুরে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের চাঁদমারী এলাকায় দূরপাল্লা বাস কাউন্টারের সামনে থেকে অভিযুক্ত সানিকে গ্রেফতার করেছে।

নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার (অপারেশন) জয়নাল আবেদীন মন্ডল জানান, দূরে কোথায় পালানো জন্য চাঁদমারী এলাকায় বাস কাউন্টারে অবস্থান করে সানি। এসময় তথ্য প্রযুক্তি মাধ্যমে অবস্থান নিশ্চিত করে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি কামরুল ইসলাম জানান, সানি ঘটনার পর মাথার চুল কেটে ও বেশ পাল্টে পালানোর সময় চাঁদমারী বাস কাউন্টার থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

এর আগে ঘটনার তিনদিন পর সোমবার দুপুরে ওই তরুণী বাদী হয়ে তিনজনের নাম উল্লেখ করে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় মামলা করে। তবে অভিযুক্ত ধর্ষক প্রেমিক সানিকে পালিয়ে যেতে সহায়তার অভিযোগ তুলে এসআই সাইফুলকেও মামলার আসামী হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করার দাবী তুলে নির্যাতিতা। নইলে সে আত্নহত্যারও হুমকী দেয়।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ৬ মাস আগে চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে রবিউল ইসলাম সানির সাথে পরিচয় ঘটে ওই তরুণীর। তখন থেকেই তাদের সম্পর্ক ছিল। ঈদের ছুটিতে গত ৭ জুন সামির দাওয়াতে চট্রগ্রাম থেকে নারায়ণগঞ্জে আসে ওই তরুণী। পরে শহরের গলাচিপায় শ্যামলী পরিবহনের কাউন্টারের পাশে একটি রুমে নিয়ে ধর্ষণ করে সানি। ঘটনার পর তরুণীকে আরেকটি বাসে করে চট্রগ্রাম পাঠানোর চেষ্টা করা হয়। কিন্তু তাদের বাকবিতন্ডায় লোকজন জড়ো হলে সানি পালিয়ে যায়।