দুপুর সাড়ে ৩টায় ইংল্যান্ড – বাংলাদেশ লড়াই

ক্রীড়া ডেস্ক(আজকের নারায়নগঞ্জ):টাইগারদের মিশন এবার হোস্ট ইংল্যান্ড বধ। আগের দু বিশ্বকাপে ওদের বিপক্ষে ব্যাক টু ব্যাক জয় দিচ্ছে বড় অনুপ্রেরণা। লাকি ভেন্যু কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেন্সে ম্যাচ শুরু শনিবার দুপুর সাড়ে তিনটায়। লড়াইটা বেশ গুরুত্ব পাচ্ছে দুই দলের অধিনায়কের কাছেও।

ওভালে শেষ ম্যাচের আগে বৃষ্টিতে পন্ড হয়েছিল টাইগারদের অনুশীলন। কার্ডিফেও পিছু ছাড়েনি বৃষ্টি। পন্ড মাশরাফিদের মাঠের প্রাকটিস। ঠিকঠাক অনুশীলন করতে না পারার আক্ষেপ ক্যাপ্টেন মাশরাফীরও। ইনডোরের নেটেই মুশফিক, মিথুনরা।

এবারের আসরের হট ফেবারিট ইংল্যাণ্ড। ভালো করেই ওদের শক্তি জানা আছে বাংলাদেশের। তবে ছাড় দেবে না বলে রেখেছেন টাইগার অধিনায়ক।

ওয়েলসের উইকেটে বাড়তি সুবিধে পেতে পারেন পেইসাররা। সেক্ষেত্রে এ ম্যাচে খেলতে পারেন রুবেল।

২০১১ আর ১৫ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের কাছে হেরেছে ইংলিশরা। কিন্তু গেল বিশ্বকাপের পর থেকেইতো আমুল বদলেছে ওরা। এখন আর ব্যাকরনের ধার ধারে না। অ্যাটাকি ক্রিকেটে ঘায়েল করে প্রতিপক্ষকে। তবে প্রতীপক্ষ যখন বাংলাদেশ তখনই দারুন সাবধানী হোস্টরা।

ইংল্যান্ড অধিনায়ক এউইন মরগান বলেন, ’বাংলাদেশের বিপক্ষে ডিফিকাল্ড ম্যাচ হবে। ওরা অনেক ভাল ক্রিকেট খেলে। আর ওদের সিনিয়ররা অনেক ম্যাচ খেলছে। দ. আফ্রিকার সাথে ভাল ম্যাচ খেলেছে। নিউজিল্যান্ডকেও অনেক চাপে রেখেছে। আমাদের জন্যও কিছুই সহজ হবে না।তাদের ব্যাটং সাইড অনেক ভাল। ভাল স্পিনার এবং পেইসারও আছে।’

ইংল্যান্ড ফাস্ট বোলার লিয়াম প্লানকেট বলেছেন, বাংলাদেশ এখন আর ছোট দল নয় এবং বিশ্বকাপে তাদের কাছে হারলে এখন আর সেটাকে ‘দুর্ভাগ্য’ বলা যাবে না।

অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা বলেছেন, ‘ওরা (ইংল্যান্ড) বেশ শক্তি নিয়ে আমাদের ওপর অ্যাটাক করবে, এটা খুবই স্বাভাবিক। অন্যান্য বড় দলের সাথে এটা ওরা করে থাকে।’

মাশরাফি বলেন, ‘সেক্ষেত্রে কোনো কোনো সময় ডিফেন্স এখানে ভালো অ্যাটাক।’ তাই আক্রমণাত্মক খেলে নয়, রক্ষণাত্মক ক্রিকেটেই ইংল্যান্ডকে আটকে দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়ে মাঠে নামবে বাংলাদেশ।

ইংল্যান্ডকে তাদের মাটিতে বাংলাদেশ হারিয়েছে একবারই- ২০১০ সালের ন্যাটওয়েস্ট সিরিজে।

বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশঃ তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির রহমান/মোহাম্মদ মিঠুন, মোসাদ্দেক হোসেন, মেহেদি হাসান মিরাজ, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মাশরাফিন বিন মুর্তজা (অধিনায়ক) ও রুবেল হোসেন/মোস্তাফিজুর রহমান।
ইংল্যান্ডের সম্ভাব্য একাদশঃ জেসন রয়, জনি বেয়ারস্টো, জো রুট, জস বাটলার, ইয়ন মরগান (অধিনায়ক), বেন স্টোকস, মঈন আলি, ক্রিস ওকস , মার্ক উড, জোফরা আর্চার এবং লিয়াম প্লাঙ্কেট।