মহাদেবপুরে স্বামীর নির্যাতনে দিশেহারা যুবতীর বিষপানে মৃত্যু

 

মাহবুবুজ্জামান সেতু,নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর মহাদেবপুরের সফাপুর ইউ’পির বাঁশবাড়িয়া গ্রামের আয়েজ উদ্দীনের মেয়ে সাহারা খাতুন (২৬)বিষপান করে মৃত্যুবরণ করেছে। সাহারা বাবার বাড়িতে থাকাবস্থায় আজ শুক্রবার(৭জুন) ১১টা ২০ মিনিটে মৃত্যু বরণ করেন।

জানা গেছে,নিহত সাহারার বাবা একজন হতদরিদ্র মানুষ।সংসারে অভাবের তাড়নায় বিবাহের পূর্বে ঢাকায় গার্মেন্টস কর্মী হিসেবে যোগদান করেন সাহারা। সেখানে কর্মরত অবস্থায় পরিচয় হয় দিনাজপুর ফুলবাড়ি এলাকার এক যুবকের সাথে। পরিচয় থেকে প্রেম।তারপর উভয় পরিবারের সম্মতিতে বিয়ে। বিয়ের পর কিছুদিন ভালোই চলছে সম্পর্ক। কিন্তু অর্থই অনর্থের মূল। শুরু হয় যৌতুকের ওযুহাতে শারিরিক নির্যাতন। বিয়ের প্রায় ২ বছর যেতে না যেতেই ফিরে আসতে হয় বাবার বাড়ি জন্মস্থান নওগাঁর মহাদেবপুরে। বেশ কিছু থেকে দ্বন্দ্ব চলতে থাকায় নিজের সুখকে জলাঞ্জলি দিয়ে নিজ মেয়েকে ওই কুলাঙ্গার জামাইয়ের ভাত খাওয়াবে না বলে দিনাজপুর ফুলবাড়ি থেকে নিয়ে আসেন নিজ বাড়িতে। মাঝে মাঝে জামাই যৌতুক স্বরূপ একটি মোটরসাইকেল দাবি করে বসতো। কিন্তু মেয়ে সাহারা ওই ছেলের জন্য পাগল ছিলো । ও সবসময় চাইতো ওই ছেলেটির সাথে সংসার করতে। কিন্তু ততা আর হয়ে উঠলো না এবং যৌতুকের দাবিকৃত মোটরসাইকেল দিতে না পারায় ঈদের আগের দিনে মোবাইল ফোনে কথাকাটি হয় মেয়ে এবং জামাতার মাঝে। এতে পারিবারিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন হওয়ায় রাগে অভিমানে ঘাস মারা বিষপান করে সাহারা।

বিষয়টি বুঝতে পেরে পরিবারের লোকজন তাকে দ্রুত উদ্ধার করে মহাদেবপুর স্বাস্থ্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করিয়ে দেন। ভর্তির পর দু’দিন চিকিৎসা শেষে রিলিজ নিয়ে বাবার বাড়ি ফিরে আসেন সাহারা। পরবর্তীতে সাহারা বাবার বাড়িতে থাকাবস্থায় আজ শুক্রবার ১১টা ২০ মিনিটে মৃত্যু বরণ করেন।

খবর পেয়ে পুলিশ নিহতের বাবার বাড়ি থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নওগাঁ সদর হাসপাতালে পাঠায়। ময়না তদন্ত শেষে নিহতের বাবার বাড়ির পারিবারিক কবরস্থানে রাত সাড়ে ৮ টায় কবরস্থ করা হয়।

মহাদেবপুর থানার তদন্ত ওসি সিদ্দিকুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন এব্যাপারে একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের হয়েছে।