যারা স্বাধীনতা চায় নাই,তাদের চক্রান্তেই খালেদা জিয়া কারাবন্দী- সেলিমা রহমান

আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্ক: সাবেক মন্ত্রী ও বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান বলেছেন, যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা চায় নাই, যারা মুক্তিযুদ্ধের সময় ওপারে গিয়ে বিলাসিতায় জীবন যাপন করেছে, যারা জনগণের ভালো চায় না তারা আবারো চক্রান্ত করছে। আর আজকে এই চক্রান্তের শিকার হয়ে দেশনেত্রী বেগম জিয়া একটি মিথ্যা মামলায় রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হয়ে কারাবন্দি। আজকে তাকে বাইরে রাখার সাহস পাচ্ছে না বর্তমান স্বৈরাচারী সরকার। এ সরকার গণতন্ত্রকে হত্যা করে রাতের আধারে ব্যালট বক্স ভর্তি করে জোর করে ক্ষমতায় এসেছে। গণতন্ত্র যখন হত্যা করা হয় তখন আর মানুষের অধিকার আর থাকে না। তাই এখন জনগণের কোনো অধিকার নাই।

বুধবার (২৯ মে) নগরীর উকিলপাড়ায় পালকি কনভেনশন হলে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী ও চেয়াপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ইফতারপূর্ব আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। জেলা মৎসজীবী দলের উদ্যোগে এ আয়োজন করা হয়।

তিনি আরো বলেন,জামিন পাওয়ার যোগ্য হলেও আজকে সরকারের ক্ষমতাবলে বেগম জিয়া কারাগারে। এখানে আইনের কোনো শাসন নাই বললেই চলে। আজকে আইন একদলীয় হয়ে গেছে।

আওয়ামী লীগ সরকারের সমালোচনা করে বলেন, আপনারা আজকে দেখতে পাচ্ছেন কৃষকের ঘরের ধানের আজকে কোনো মূল্য নেই। কৃষকরা আজকে না খেয়ে হাহাকার করছে। শ্রমিকরা আজকে তাদের ন্যায্য মুজুরি পাওয়ার জন্য আন্দোলন করছে। কিন্তু তাদের কথা কেউ শুনছে না। কারণ এই সরকারের কোনো জবাবদিহিতা নাই। জনগণের কী হলো, কী না হলো এতে তাদের কোনো দায় নাই। আজকে কোথাও কোনো জীবনের নিরাপত্তা নাই।

বিএনপির এই কেন্দ্রীয় নেত্রী বলেন, প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের শাহাদাৎ বার্ষিকী আমাদের জন্য শোকের দিন নয়। এটা আমাদের শক্তির উৎস। আমাদের ঐক্যবদ্ধ থাকার উৎস। আজকে এদেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করতে হলে আমাদের বেগম জিয়াকে মুক্ত করতে হবে। কারণ বেগম জিয়ার মুক্তি মানে এদেশের গণতন্ত্রের মুক্তি। বেগম জিয়ার মুক্তি মানে হলো ন্যায়বিচারের মুক্তি।

জেলা মৎসজীবী দলের আহ্বায়ক আনোয়ার প্রধানের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন, মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি এড. সাখাওয়াত হোসেন খান, কেন্দ্রীয় মৎসজীবী দলের আহ্বায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম মাহতাব, সদস্য সচিব আব্দুর রহিম, যুগ্ম আহবায়ক অধ্যক্ষ মো. সেলিম মিয়া, জাকির হোসেন খান, ওমর ফারুক পাটোয়ারি, তরিকুল ইসলাম মধু, মো. শাহ আলম, মো. সাইদুল ইসলাম টুলু প্রমুখ।